তাহিরপুরে বালু উত্তোলনে বাঁধা দেয়ায় গৃহবধূকে মারধর থানায় অভিযোগ 

6

তাহিরপুর সুনামগন্জ প্রতিনিধি::

তাহিরপুর উপজেলায় জাদুকাটা নদীতে পাড় কেটে বালু উত্তোলনে বাঁধা দেয়ায় বালু সন্ত্রাসীদের হাতে  ফিরুজা বেগম (৩০) নামের এক গৃহবধূকে মারধরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। গৃহবধূকে মারধরের ঘটনায় ওই গৃহবধূর স্বামী আব্দুল লতিফ (৩৯) আজ সকালে বাদী হয়ে মোদেরগাও গ্রামের খছরু মিয়া ওরুপে ফর্ছা মিয়ার ছেলে বালু সন্ত্রাসী মনির মিয়া(২৫) তার ভাই জাকির মিয়া(২২), ওহেদ মিয়ার ছেলে নুরুজ্জামান (২৮) আলফু মিয়ার ছেলে মানিক মিয়ার নাম উল্লেখ করে আরও ৩  জনকে গং রেখ থানায় একটি লিখিত  অভিযোগ দায়ের করেন। এ ঘটনাটি ঘটেছে আজ (২৩ নভেম্বর)  মঙ্গলবার সকাল ৬ টার সময় উপজেলার উত্তর বাদাঘাট ইউনিয়নের মোদেরগাও গ্রাম সংলগ্ন আব্দুল লতিফের বসত বাড়ির সামনে জাদুকাটা নদীর তীর। 

থানায় অভিযোগ সূত্রে জানাযায়, দীর্ঘদিন ধরে নদীর পাড় কাটার গডফাদার বালু সন্ত্রাসী মনির মিয়া তার ভাই জাকির মিয়া, নুরুজ্জামান, মানিক মিয়াসহ ৮/১০ জনের একটি গ্রুপ দিনেদুপুরে ও রাতের আঁধারে মোদেরগাও সংলগ্ন জাদুকাটা নদীর পাড় কেটে বালু বিক্রি করে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় আজ ভোর সকালে আব্দুল লতিফের বাড়ির সামনে জাদুকাটা নদীর পাড় কেটে বালু উত্তোলন করে নৌকা ভর্তি করার সময় দেখতে পেয়ে গৃহবধূ ফিরুজা বেগম তাদের বাড়ির সামনে নদীর পাড় কাটতে বাধ নিষেদ করে। এ সময় কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে জাকিরের হাতে থাকা লোহার রড দিয়ে ফিরুজার মাথায় আঘাত করে। এবং মনির,নুরুজ্জামান ও জাকিরসহ উপস্থিত বালু সন্ত্রাসীদের তাদের হাতে থাকা লোহার রড, বেলছা ও বাঁশের দিয়ে এলোপাতাড়ি  মারধর শুরুকরে গৃহবধূ ফিরুজাকে রক্তাক্ত গুরুতর আহত করে।  এ সময় ফিরুজার ডাক চিৎকারে ফিরুজার স্বামী আব্দুল লতিফ এগিয়ে এলে বালু সন্ত্রাসীরা তাকেও মারধর করে ফেলে রেখে চলে যায়।  পরে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে ফিরুজার স্বামী আব্দুল লতিফকে স্থানীভাবে চিকিৎসা দেয়ে এবং গৃহবধূ ফিরুজাকে গুরুতর রক্তাক্ত অবস্থায় তাহিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে ভর্তি করে। 

এ বিষয়ে মামলার তদন্তকরি এ এস আই শহিদুল ইসলাম বলেন, আমি ঘটনার স্থলে আছি। অভিযোগের তদন্তপূর্বক সত্যতা ফেলে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন...