উল্লাপাড়ায় পিঁয়াজের ঝাঁঝে আহত মধ্যবিত্তরা

3

রিয়াজ আহমেদ হান্নান, স্টাফ রিপোর্টারঃ সিরাজগঞ্জে  পেঁয়াজের দাম বাড়ছে লাফিয়ে লাফিয়ে। গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে জেলায় প্রতি কেজি পেঁয়াজের দাম বেড়েছে ৩৫ টাকা। হঠাৎ করে পেঁয়াজের দাম বেড়ে যাওয়ায় দিশেহারা ক্রেতারা।

পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধিকে ক্রেতারা ব্যবসায়ীদের কারসাজি বললেও  তা মানতে নারাজ ব্যবসায়ীরা। ব্যবসায়ীরা বলছেন, বেশি দামে কিনতে হচ্ছে পেঁয়াজ, তাই বিক্রিও করতে হচ্ছে বেশি দামে।

সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া, শাহজাদপুর, বেলকুচি, এনায়েতপুর, রায়গঞ্জ, কাজিপুর সহ বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা যায়, দেশী পেঁয়াজ কেজি প্রতি ৭৫ থেকে ৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। গত এক সপ্তাহে আগে ৪০ থেকে ৪৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হতো । গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে প্রতিকেজি পেঁয়াজের দাম বেড়েছে ৩৫ থেকে ৪০ টাকা।

পাইকারি ব্যবসায়ীরা বলেন, পেঁয়াজের বড় বাজার নাটোরের নলডাঙ্গা ও রাজশাহীর তাহেরপুর ও পাবনার বেড়া। প্রতি হাটে পেঁয়াজের দাম ওঠানামা করে। সেখান থেকে কিনে  বিভিন্ন স্থানে বিক্রি করা হয়। বেশি দামে কেনার কারণে বিক্রিও করতে হচ্ছে বেশি দামে। আর পেঁয়াজ যে দামের সঙ্গে পরিবহন ও শ্রমিক খরচও যোগ করা হয়। এরপর প্রতি কেজিতে একটা মিনিমাম লাভ ধরে পাইকারি বিক্রি করা হয়।এতে সাধারণ ক্রেতাদের হীমশীম খেতে হচ্ছে।

তবে কোন কোন ব্যবসায়ি জানান, পূজোর কারণে ভারতেরএলসির পেঁয়াজ ঠিকমত না আসায় পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে।

এদিকে সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলার বাজারগুলোতে বেড়েই চলেছে পেঁয়াজের ঝাঁজ। ক্রেতা সাধারণ আবারো আতংকিত হচ্ছে। ৪ অক্টোবর পর্যন্ত ৪০-৪৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছিল পেঁয়াজ। তবে মঙ্গলবারে তা বৃদ্ধি পেয়ে ৬০ টাকা কেজিতে বিক্রি হয়। কিন্ত বৃহস্পতিবার থেকে বিক্রি হয় ৭০ টাকা কেজি দরে। আজ তা বেড়ে ৮০ টাকায় উঠেছে।

উল্লাপাড়ার রাজমান, লাহিড়ী মোহনপুর , গয়হাট্রা, সলপ, কৃষকগন্জ, উউল্লাপাড়া বাজার, বালসাবাড়ি বাজার সহ সব বাজারে পেঁয়াজ নিয়ে সাধারণ মানুষের মাঝে ভয় কাজ করছে। না জানি আবার আরো দাম বেড়ে যায় তাই নিয়ে বিপাকে পড়েছেন ক্রেতারা। অনেকেই বেশি করে কিনে নিচ্ছেন। কৃষক গন্জ বাজারের পাইকারী পেঁয়াজ ব্যবসায়ী রুবেল বলেন, আমদানিকারকরা সিন্ডিকেট করে পেঁয়াজের দাম বাড়িয়েছেন। আমরা ছোট ব্যবসায়ীরা নিরুপায়। কেনার চেয়ে কেজিতে ৫ টাকা বেশি করে বিক্রি করা হচ্ছে।

নিউজটি শেয়ার করুন...
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •