পাটকেলঘাটায় জমাত নেতার প্রতিহিংসার শিকার আ’লীগ নেতা রিপন

39

স্টাফ রিপোর্টার:
জমাত নেতার প্রতিহিংসার শিকার আওয়ামীলীগ নেতা রিপন। ভুক্তভুগি রিপন পাটকেলঘাটার তৈলকুপি গ্রামের রুহুল আমিন সরদারের ছেলে ও ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক।

জানা গেছে, আ’লীগ নেতা রিপন সরদার একই এলাকার জামায়াত নেতা হাসানুর রহমান এর প্রতিহিংসার শিকার হয়েছেন। হাসান তালা উপজেলা ছাত্রশিবিরের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান সাতক্ষীরা জেলা জামায়াতের অর্থ সম্পাদক।

ভুক্তভুগি রিপন সরদার জানান, হাসান তৈলকুপি গ্রামের মছলেম উদ্দিনের ছেলে। তাঁর নামে ২০১৩/১৪ সালের একাধিক নাশকতা মামলা রয়েছে । আমার কাছে তার সে সময়কার নাশকতা মুলুক কর্মকান্ডের ভিডিও ফুটেজ রয়েছে। সাম্প্রতিক নাশকতা মুলুক কর্ম কান্ড করা অবস্থায় পাবনা থেকে হাসান গ্রেফতার হয়। এ ঘটনায় পত্রিকায় প্রকাশিত নিউজ ও হাসানের পূর্বের নাশকতা করার ভিডিও আমি আমার ফেসবুকে পোস্ট করি। যে কারণে হাসান আমার উপর ক্ষিপ্ত হয়ে হাসানের কথিত মামাতো বোন তানিয়ার প্রেমিক ফান্টু সরদারকে দিয়ে আদালতে আমার বিরুদ্ধে ভিত্তিহীন একটি মামলা করিয়েছে।

রিপন সরদার বলেন, এ ঘটনার পরে আমি হাসানের কাছে ফোন দিলে হাসান আমাকে বলে আমি তার বিরুদ্ধে হওয়া নিউজগুলো ফেসবুকে শেয়ার ও তার নাশকতামূলক কর্মকাণ্ডের ভিডিও ফেসবুকে পোস্ট করায় আমার বিরুদ্ধে নাকি এই মামলা হয়েছে।

এ ব্যাপারে জামাত নেতা হাসানুর রহমান ওরফে মিনিস্টার হাসান বলেন, আমি একজন গরিবের পাশে দাঁড়িয়েছি। প্রতিহিংসামূলক ভাবে এমন কর্মকাণ্ড করিনি।

পাটকেলঘাটার কাশিয়াডাঙ্গা এলাকার স্থানীয় সংবাদ কর্মী আল-আমিন সর্দার জানান, মঙ্গলবার এ ঘটনায় আমি তথ্য সংগ্রহ করতে গেলে। হাসান আমাকে রিপনের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশ করলে ২ হাজার টাকা দিতে চান।

তিনি আরও বলেন, পরবর্তীতে আমি প্রকৃত ঘটনা উদ্ঘাটন করে সংবাদ প্রকাশ করব ফেসবুকে এমন পোস্ট দিলে হাসান তার লোকজন দিয়ে আমার বিরুদ্ধে মামলা করার হুমকি দেয়।

এদিকে রিপনের বিরুদ্ধে করা মামলার বাদী পাটকেলঘাটার যুগীপুকুর এলাকার শরীয়াতুল্লাহ সরদারের ছেলে ফান্টু সরদার এর কাছে মামলার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন আমি এই ব্যাপারে আপনাদের সাথে কথা বলব না, আমি কিছু জানি না, সবকিছু হাসান ভাই জানে, আপনারা হাসান ভাইয়ের সাথে যোগাযোগ করেন। পরবর্তীতে তার নাম্বারে একাধিকবার কল করলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

পাটকেলঘাটা থানার ওসি তদন্ত বাবলুর রহমান বলেন কোর্টে মামলা হয়েছে। থানাকে মামলার তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে। আমরা সবেমাত্র কোর্টের নির্দেশনা হাতে পেয়েছি। এ বিষয়ে তদন্তপূর্বক তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়া হবে।

উল্লেখ্য: সম্প্রতি ফান্টু সরদারের ছেলে শরিফ সরদার তার বাবার সাথে এক নারীর পরকীয়ার সম্পর্কের একটি কথোপকথনে রেকর্ড রিপন সরদার এর কাছে দিয়ে এ বিষয়ে খোঁজখবর নিতে বলে। রিপন সরদার খোঁজখবর নিয়ে এ বিষয়ে সমাধানের জন্য ওই নারীসহ উভয়পক্ষকে একত্রে করে সমাধানের চেষ্টা করে। একপর্যায়ে এ বিষয়টি জামাত নেতা হাসান জানতে পেরে সে এই বিষয়ে মধ্যস্থতাকারী আওয়ামী লীগ নেতা রিপন সরদার এর বিরুদ্ধে ফান্টু সরদারের কাছে বাজে কথা বলে রিপন সরদার এর বিরুদ্ধে একটি মামলা করিয়েছে।