বিপুল পরিমান বিদেশী মদসহ মাদক চোরাচালানকারী গ্রেফতার ১

33

নিজস্ব প্রতিবেদক,ঢাকা

বিপুল পরিমান বিদেশী মদসহ অবৈধ বিদেশী মদ চোরাচালানকারীর একজন সদস্যকে গ্রেফতার করেছে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর,ঢাকা মেট্রোঃ কার্যালয় (উত্তর)। বৃহস্পতিবার রাতে বিমানবন্দর ও বনানী এলাকা কেন্দ্রিক অবৈধ বিদেশী মদ সরবরাহকারী একজন সদস্যকে ৫৬ বোতল অবৈধ বিদেশী মদসহ গ্রেফতার করা হয়।

শুক্রবার (২৬ মে) সকাল মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর, ঢাকা মেট্রোঃ কার্যালয় (উত্তর) এর সহকারী পরিচালক মো. মেহেদী হাসান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের ঢাকা মেট্রোঃ কার্যালয় (উত্তর) গুলশান সার্কেল এর একটি টিম বৃহস্পতিবার রাতে অভিযান পরিচালনা করে রাজধানীর বনানী থানাধীন কড়াইল বস্তি এন্ড টি কলোনীর (এরশাদ মাঠ) কবরস্থান রোডস্থ মিম ফ্যাশন গ্যালারী নামের একটি দোকানের ভিতর থেকে ৫৬ বোতল অবৈধ বিদেশী মদ সহ একজন মাদক চোরাচালানকারী কে গ্রেফতার করে।

তিনি আরও জানান, গ্রেফতারকৃত মাদক ব্যবসায়ী দীর্ঘদিন ধরে রাজধানী ঢাকাসহ বিভিন্ন জায়গায় অবৈধ বিদেশী মদ সরবরাহ করে আসছিল বলে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের কাছে গোয়েন্দা তথ্য ছিল। আসামী বিভিন্ন কৌশলে তার ব্যাবসা পরিচালনা করে আসছিল। গোয়েন্দা তথ্য অনুযায়ী বেশ কিছুদিন ধরে তার কার্যক্রম ও গতিবিধি মনিটরিং কারা হচ্ছিল। সর্বশেষ মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের কাছে তথ্য আসে যে, ওই মাদক ব্যবসায়ী বিমানবন্দর কেন্দ্রিক একটি চক্রের কাছ থেকে অবৈধ বিদেশী মদ সংগ্রহ করে গুলশান ও বনানীর বিভিন্ন জায়গায় সরবরাহ করবে।

তিনি বলেন, গোয়েন্দা নজরদারী এবং তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় গুলশান সার্কেল কর্তৃক গঠিত টিম মো. মনির হোসেন (৩৮) কে, চিভাস -১২ হুইস্কি- ২৮ বোতল, ট্রাভেলাস ক্লাব হুইস্কি -৮ বোতল, ব্লাক লেবেল হুইস্কি – ১৯ বোতল, ভ্যাট-৬৯ লেবেল হুইস্কি -১ বোতলে মোট ৫৬ বোতল মদসহ আটক করে। এসময় মাদক বিক্রির কাজে ব্যবহৃত তার মোবাইল সেট জব্দ করা হয়। পরবর্তীতে আটককৃত মনির জিজ্ঞাসাবাদে মাদক চোরাচালানের কথা স্বীকার করে।

তিনি আরও বলেন, আসামীকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে চক্রের অন্যান্য হোতাদের সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া গেছে, যা নিয়ে আমরা অধিকতর অনুসন্ধানপূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণ করবো এবং ইতিমধ্যে তাদেরও নজরদারিতে রাখা হয়েছে। যে কোন সময় অভিযান পরিচালনা করা হবে। গ্রেফতারকৃত আসামীর বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নিয়ে জেল হাজতে প্রেরণের প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তর, ঢাকা মেট্রোঃকার্যালয় (উত্তর) কর্তৃক ভবিষ্যতে এ ধরণের অভিযান অব্যাহত থাকবে।

গ্রেফতার ও অভিযানের বিষয়ে জানতে চাইলে, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের ঢাকা বিভাগীয় কার্যালয়ের অতিরিক্ত পরিচালক মো. জাফরুল্ল্যাহ কাজল বলেন, ক্রিস্টালমেথ/আইস, ইয়াবা, এল.এসডি, ডিওবি সহ অন্যান্য ক্ষতিকর মাদকের পাশাপাশি অবৈধ বিদেশী মদ চোরাচালানের সাথে যারা জড়িত তাদের উপর নজরদারি জোরদার করা হয়েছে। ভবিষ্যতে এই ধরনের অভিযান অব্যাহত থাকবে মাদক মুক্ত বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে সরকার ঘোষিত মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি বাস্তবায়নে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর (ডিএনসি) বদ্ধপরিকর।

ঢাকা মেট্রোঃ কার্যালয় (উত্তর) এর এর উপপরিচালক মো. রাশেদুজ্জামান এর তত্ত্বাবধানে এবং সহকারী পরিচালক মো. মেহেদী হাসান এর নেতৃত্বে অভিযানটি পরিচালিত হয়।

ডিআই/এসকে