ঝিনাইগাতীর রাংটিয়ার পাকা সড়ক হতে রাবার ড্যাম পর্যন্ত রাস্তার বেহাল দশা

5

মোঃ রাকিবুল হাসান, ঝিনাইগাতি (শেরপুর) প্রতিনিধিঃ
শেরপুরের ঝিনাইগাতি উপজেলার নলকুড়া ইউনিয়নের রাংটিয়া বাজার রোড থেকে রাংটিয়া মহারশী নদীর রাবার ড্যাম যাতায়াতের রস্তাটির বেহাল দশা।

উক্ত রাস্তাটি দিয়ে রাংটিয়া গ্রামের কৃষক শ্রমিক ও এলাকাবাসীর পাকা রাস্তায় যাওয়ার এবং রাবার ড্যামে কৃষকেরা যাওয়ার জন্য এই রাস্তটি দিয়ে যাতায়াত করতে হয়। কিন্তু এমন বেহাল অবস্থার রাস্তাটি দিয়ে চলাচল করতে হয়। পাশাপাশি বোর চাষিরা পানি সংগ্রহ করতে হলে এই রাস্তা দিয়ে রাবার ড্যামে যেতে হয়। এছাড়াও গ্রামের কৃষকদের উৎপাদিত নানা জাতের কৃষি পন্য বাজারে বিক্রি করতে এই রাস্তাটির কারনে অনেক কম মল্যে বাড়ীতে বিক্রি করতে হয়। কারন রাস্তার বেহাল দশার কারনে কোন গাড়ি যাতায়াত করতে না পাড়ায় পানির দামে কৃষকের উৎপাদিত কৃষি ফসল বিক্রি করে লাভের পরিবর্তে লোকসান গুনতে হচ্ছে। দীর্ঘ দিন থেকে এই রাস্তাটির বেহাল দশার কারনে দূর্ভোগ পোহাচ্ছে। অথচ উক্ত ইউনিয়নের কৃষি ফসল উৎপাদনে বিশেষ
অবদান রেখে আসছে।

কিন্তু উৎপাদিত কৃষি পণ্য রপ্তানির জন্য যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নয়ন অপরিহায্য। তাই রাংটিয়া রাবারডেম এলাকাবাসীর দাবী অবিলম্বে বেহাল দশার রাস্তাটি পুনঃ মেরামত ও পাকা করনের মাধ্যমে গ্রাম বাসীর দির্ঘদিনের দুঃখ দূরদশা লাঘবের ব্যবস্থা গ্রহন করবেন এমন
প্রত্যাশা দূরভোূগে থাকা এলাকাবাসীর। এ ব্যপারে নলকুড়া ইউসিয়নের চেয়ারম্যান মো. রুকুনুজ্জামানের সাথে কথা হলে তিনি জানান জরুরী ভাবে রাস্তাটি মেরামতের বা ইটের সলিং করার জন্য উদ্যেগ গ্রহন করা হয়েছে বলে জানান।

তবে বিজ্ঞমহল মনে করে রাস্তা ইটের সলিং না করে রাস্তা
পাকা করা জরুরি দরকার বলে মনে করেন। ইটের সলিং রাস্তা দ্রত সময়ে নষ্ট হয়ে যায় ফলে সরকারের বরাদ্দ
কৃত অর্থ অপব্যায় হিসেবে ধরা যায়।