বাংলাদেশের সম্পর্ক বাড়াতেই শুভেচ্ছা সফর আসেন আসামের বিধানসভার স্পিকার :বিশ্বজিৎ দাইমারি

3

সোহেল সরকার, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সংবাদদাতাঃ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া স্থলবন্দর দিয়ে ভারতের আসাম রাজ্যের বিধানসভার স্পিকারের নেতৃত্বে প্রায় ৩৫ বিধায়কসহ ৬২ জনের একটি দল বাংলাদেশে এসেছে। শনিবার (১৯ নভেম্বর) সকাল ১০টার দিকে তারা এক এক করে প্রবেশ করে।

আসামের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্ক বাড়াতেই শুভেচ্ছা সফর হিসেবে ঢাকায় যাবে তারা। সংসদীয় ব্যবস্থাসহ অন্য বিষয়ে বাংলাদেশের অবস্থা সম্পর্কে জানবে।

এ প্রতিনিধি দলকে আখাউড়া চেকপোস্টে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক প্রণয় চাকমা, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোল্লা মোহাম্মদ শাহীন ও আখাউড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অংগ্যজাই মারমা উপস্থিত থেকে স্বাগত জানান।

এ সময় আসাম বিধানসভার স্পিকার বিশ্বজিৎ দৈমারী গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আগে আসামে মানুষের জীবিকা ছিল কৃষি। এখন ব্যবসাটাই মূল। এই সফরের বাণিজ্যিক সুফল পাবে আসামের যুব সমাজ। মহাভারতে আসাম ও বাংলাদেশ এক ছিল। আমরা এখন জানতে এসেছি এখানকার সংসদীয় প্রক্রিয়া ও ব্যবস্থা কেমন।

সংসদ সদস্যরা মানুষের সমস্যাগুলো কীভাবে সংসদে উপস্থাপন করে সমাধানের ব্যবস্থা করেন সেটি আমরা জানতে চাই।

স্পিকার বিশ্বজিৎ দৈমারী আরও বলেন, ‘মহান মুক্তিযুদ্ধে ভারত যেভাবে বাংলাদেশের পাশে ছিল, এখনো যেকোনো বিপদে বাংলাদেশের পাশে থাকবে।’  

আসাম বিধায়ক প্রতিনিধিদলের নেতৃত্বে থাকা বিধানসভার স্পিকার বিশ্বজিৎ দাইমারি সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা ভৌগোলিক ও মনের দিক থেকে আলাদা হইনি। আমরা আলাদা শুধু প্রশাসনিকভাবে। অন্যক্ষেত্রে আমাদের মিল রয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ঢাকা সফরকালে বিধানসভার সদস্যরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন।

একইসঙ্গে জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের সঙ্গে বৈঠক করবেন। বিধায়করা রাঙামাটির একটি গ্রামে যাবেন যেখানে অসমীয়া লোক বসবাস করেন।

আসাম বিধায়ক প্রতিনিধি দলে একটি সাংস্কৃতিক দলও আছে। তারা বেশ কয়েকটি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশ নেবে।

বিধায়কের প্রতিনিধি দলটি খাগড়াছড়িতে যাবে। সেখানে তারা বোড়ো জনগোষ্ঠীর সঙ্গে মতবিনিময় ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশ নেবে। সফর শেষে ২৩ নভেম্বর প্রতিনিধি দলটি ঢাকা ছাড়বে।