উপজেলা স্বাস্থ্যকর্মকর্তার বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাৎ’র অভিযোগ 

8

শৌখিন মিয়া, রৌমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধিঃ 

কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স কর্মকর্তা ডা. আসাদুজ্জামানের বিরুদ্ধে প্রায় সাড়ে ২৪ লাখ টাকা তসরুফ ও কোভিড-১৯ টিকাদান কার্যক্রমে ও শ্রমিক মজুরির অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স কর্মকর্তার বিরুদ্ধে টিকাদান কর্মী ও স্বেচ্ছাসেবকরা পরিশ্রমের অর্থ না পেয়ে অর্থ তসরুফের বিষয়ে সবার মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে। তবে অনিয়মের ব্যাপারে অফিসের কর্মচারীদের সঙ্গে কথা বলতে চাই, সব জেনেও মুখ খুলতে সাহস পায় না অনেকে।

বিভিন্ন অভিযোগ ও অনুসন্ধানে জানা গেছে, কোভিড-১৯ করোনা প্রতিরোধ টিকাদান কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার জন্য ২০২১-২২ অর্থবছরে করোনাভাইরাসের মোকাবিলায় স্বাস্থ্য তহবিল খাতে বরাদ্দে অব্যয়িত অর্থ থেকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অনুকূলে খাতভিত্তিক অনিয়মিত শ্রমিক মজুরি ৮ লাখ ৮২ হাজার টাকা, বর্জ্য ব্যবস্থাপনা ৫ হাজার ৮৮০ টাকা, প্রচার ও বিজ্ঞাপন (মাইকিং) ১৮ হাজার টাকা, সাব-ব্লক অনুযায়ী সেশন পরিকল্পনা বিল ৬ লাখ ৪৬ হাজার ৪শ টাকা, বুস্টার ডোজ কার্যক্রমে ১ লাখ ৬৮ হাজার ৮৫০ টাকা, ইউনিয়ন পর্যায়ে ৩ টিম বিল ১ লাখ ৬১ হাজার ৫০০ টাকা, ভ্যাকসিনেশন কার্যক্রম অর্থায়নে ১৫ দিনের অর্থ ৩ লাখ ৬৯ হাজার টাকার সামান্য কিছু অর্থ টিকাদান কর্মীদের দিয়ে বাকি ভুয়া নাম সাজিয়ে অভিনব কৌশলে অর্থ উত্তোলন করে আত্মসাৎ করেন উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেক টিকাদান কর্মী ও স্বেচ্ছাসেবক এই অভিযোগ করেন।

এ বিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক টিকাদান কর্মীরা বলেন, করোনার শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত শুধু ৮ এপ্রিল ২০২২ পর্যন্ত ১৫ দিনের ৩ হাজার টাকা করে পেয়েছি। আর অন্য কোনো টাকা দেওয়া হয়নি। তবে এ বিষয় নিয়ে স্যারকে বলা হলেও কোনো কথা বলেননি তিনি।

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. আসাদুজ্জামানের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি চড়াও হয়ে বলেন, কী লেখবেন লেখেন। আমার অবস্থান থেকে আমি ক্লিয়ার। নিয়োগকৃত সব কর্মী ও স্বেচ্ছাসেবকদের মাঝে বরাদ্দের টাকা সঠিকভাবে বিতরণ করা হয়েছে।

কুড়িগ্রাম জেলা সিভিল সার্জন ডা. মঞ্জুর-এ-মোর্শেদ বলেন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে বিভাজনের মাধ্যমে প্রতিটি উপজেলায় খাত অনুপাতে যেভাবে বরাদ্দের চেকগুলো দেওয়া হয় সেভাবেই উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার কাছে পাঠানো হয়। করোনার টিকাদান কর্মী ও স্বেচ্ছাসেবকদের মাঝে সঠিকভাবে বিতরণ করবেন তিনি। তবে সঠিক বিতরণ না করে অর্থ আত্মসাৎ করার ঘটনায় কোনো অভিযোগ পেলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।