দীর্ঘ দুই বছর পর কুড়িগ্রাম-রমনা রেলপথে চালু হচ্ছে কমিউটার ট্রেন

27

আকতার হাসান কুড়িগ্রাম জেলা প্রতিনিধি : দীর্ঘ দুই বছর পর কুড়িগ্রাম-রমনা রেলপথ চালুর সিদ্ধান্ত নিয়েছে রেল কর্তৃপক্ষ। মঙ্গলবার (১ মার্চ) থেকে বন্ধ হয়ে যাওয়া ওই রেলপথে কমিউটার ট্রেন চলাচলের মাধ্যমে পূণরায় যোগাযোগ ব্যবস্থা চালু হবে। এদিকে নানান অজুহাতে এই পথে চলাচলকারী রমনা লোকাল ট্রেনটি বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। ফলে জেলাবাসীর দীর্ঘদিনের দাবী এক প্রকার উপেক্ষা করেছে রেল কর্তৃপক্ষ। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ রেলওয়ে, লালমানিরহাটের ডিভিশনাল ট্রাফিক সুপারিটেনডেন্ট খালিদুন নেছা।
ডিভিশনাল ট্রাফিক সুপারিটেনডেন্ট খালিদুন নেছা জানান, মার্চের প্রথম সপ্তাহ থেকে আমরা রমনা রেলপথে কমিউটার ট্রেন চালুর সিদ্ধান্ত নিয়েছি। তবে এখনও পুরো সিডিউল চূড়ান্ত হয়নি। সবকিছুই এখনও পর্যালোচনার পর্যায়ে রয়েছে। আমাদের বিভিন্ন বিভাগের মধ্যে পর্যালোচনা ও সমন্বয় করেই কর্তৃপক্ষ চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিবেন। এছাড়াও কুড়িগ্রাম-রমনা রেলপথে ট্রেন চালুর পর পর্যায়ক্রমে ওই রেলপথটিরও সংস্কার করা হবে বলে জানান এই কর্মকর্তা।
জানা যায়, পরপর কয়েক দফা বন্যায় চিলমারীতে রেল সড়কের ক্ষতি ও করোনার প্রাদুর্ভাবের কারণে সারাদেশের ন্যায় কুড়িগ্রামেও ২০২০ সালের মার্চ মাসে জেলায় একমাত্র চলাচলকারী রমনা লোকাল ট্রেনটি বন্ধ করা হয়। পরে পর্যায়ক্রমে সারাদেশে বন্ধ হয়ে যাওয়া ট্রেনগুলো পূণরায় চালু করা হলেও রমনা লোকাল ট্রেনটি আর চালু করা হয়নি। এনিয়ে জেলাবাসীর আন্দোলনের মূখে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ লোকোমাস্টার, ইঞ্জিন স্বল্পতা ও জনবল সংকটের অজুহাতে গত দুই বছর ধরে ট্রেন চলাচল বন্ধ রাখে। তবে রেল কর্তৃপক্ষ আপাতত: কমিউটার ট্রেন চালুর উদ্যোগ নিলেও সহসাই রমনা লোকাল ট্রেন চালু হচ্ছে না বলে তারা জানিয়েছে।
রেলপথ কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, নতুন চালু হওয়া কমিউটার ট্রেনটি বিকালে লালমনিরহাট থেকে কাউনিয়া হয়ে কুড়িগ্রামে প্রবেশ করবে। এরপর কুড়িগ্রাম থেকে ঢাকাগামী যাত্রীদের কাউনিয়া নিয়ে গিয়ে সেখান থেকে ট্রেনটি পূণরায় কুড়িগ্রাম হয়ে চিলমারীর রমনায় গিয়ে থামবে। এরপর সকালে রমনা রেলস্টেশন থেকে কমিউটার ট্রেনটি কুড়িগ্রাম হয়ে ট্রেনটি কাউনিয়া দিয়ে রংপুর গিয়ে পৌঁছবে। এরপর রংপুর থেকে ট্রেনটি লালমনিরহাট রেলপথে যাতায়াত করবে।
এদিকে কমিউটার ট্রেনটির সময়সূচি যাত্রীবান্ধব নয় বলে অভিযোগ উঠেছে। সকালে কুড়িগ্রাম রেলওয়ে স্টেশন থেকে কুড়িগ্রাম এ·প্রেস রংপুর-পার্বতীপুর হয়ে ঢাকার উদ্যোশ্যে রওনা দিবে। এর কিছুক্ষণ পর একই পথে যাবে কমিউটার ট্রেনটি। ফলে অসময়ে যাত্রী না পাওয়ায় এই ট্রেনটিও বন্ধ হয়ে যাওয়ার আশংকা থাকবে। এজন্য ট্রেনের সিডিউল পরিবর্তনের দাবী উঠেছে। পাশাপাশি ট্রেনটি পার্বতীপুর রেলওয়ে জংশন পর্যন্ত চালু করে বৃহত্তর দিনাজপুর জেলা ও রাজশাহী বিভাগের সাথে যোগাযোগ উন্নিতের দাবী উঠেছে।