গরীবের ৫ কেজি চাউল আটার হাহাকার

25

নুরুল আলম, খাগড়াছড়িঃঅসহায়ের ৫ কেজি চাউল আটার হাহাকার শুরো হয়েছে, রীতিমত অভিযোগ তুলে ক্রেতাদের চোখে মুখে হতাশার প্রতিচ্ছবি ভেসে ওঠে। রাত পোহাতেই প্রস্তুতি নিয়ে সেন্ডেল পায়ে ছুটে চলা গন্তব্য সরকারি চাউল, আটার লাইনে দাঁড়ানো! সকাল ৭-৮ টায় লাইনে দাঁড়িয়ে বেলা ১২ টা কেউ পায় কেউ পায়না, ছোট, বড় ষাটোর্ধ বৃদ্ধ ও রয়েছে লাইনে দাঁড়িয়ে কখন মিলবে ৫ কেজি চাউল, আটা! আজ ২৮ ফেব্রুয়ারী সোমবার সকালে সরেজমিনে প্রত্যক্ষ করা গেছে অসহায় মানুষের উপড়ে পড়া ভীড় রামগড় পৌরসভার ৮ নং ওয়ার্ড সোনাপুল বাজারে মেসার্স হারুন ট্রেডার্স এর আজকের দৃশ্য এটি। অনেকে অভিযোগ তুলেন সরকার গরীব অসহায়ের জন্য চাউল আটার ব্যবস্থা করেছে ঠিকই এখানে কোন নিয়ম কানুন নাই, পয়সা ওয়ালা আগে পায়, কেউ ২-৩ বার নেয়, কেউ একবারও পায়না, মাঝে মধ্যে হঠাৎ বলে শেষ ! সারা দিন অর্থাৎ বিকাল ৫টা পর্যন্ত দেয়ার কথা থাকলেও কোন মতে ১১-১২ টা পর্যন্ত দেয়ার পরে আর বিক্রি করেন না। দুপুর থেকে বিকাল দোকান খোলা থাকলেও ওএমএস লাল কাপড় জুল্লেও শুনশান নীরবতা। মাঝে মধ্যে দেখা যায় নামের তালিকায় বাহারি কিসব নাম লিখায় ব্যস্ত! প্রখর রোদে মানুষ ক্লান্ত হয়ে সেখানে একটু পানি পর্যন্ত পায় না এ কেমন মানবতা? খোলা মাঠে প্রকট রোদে মানুষ অসুস্থ হওয়ার চরম ঝুঁকি থাকা সত্ত্বেও সরকারি কর্তৃপক্ষ ও ডিলার কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না। অসহায় ও সাধারণ মানুষগুলো কি সুষম বণ্টন পূর্বক মাথার উপর একটু ছায়া একটু পানির ব্যবস্থা পেতে পারে না??