আগামীকাল সিরাজগঞ্জ জেলা আ.লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন

15

মোঃ শাহাদত হোসেন, সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধিঃ
সিরাজগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন কাল সোমবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) অনুষ্ঠিত হবে। দীর্ঘ ৭ বছর পর এ সম্মেলন ঘিরে নেতাকর্মীদের মধ্যে উৎসবমুখর পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। সম্মেলনে প্রার্থীদের ব্যানার-ফেস্টুন ও তোরণে ছেয়ে গেছে জেলা শহর ও শহরতলী। শেষ মূহুত্বেও প্রার্থীরা প্রচারনায় ব্যস্ত সময় পার করছেন। এ সম্মেলনের বিশাল মঞ্চ তৈরী হয়েছে সিরাজগঞ্জ সরকারি কলেজ মাঠে। কে হচ্ছেন সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক তা নিয়ে চলছে শহর জুড়ে আলোচনা।

প্রবীণ নাকি নবীন নেতাই নেতৃত্বে আসসেন এ নিয়ে এখন সরগরম রাজনীতির অঙ্গনে। সম্মেলনে ভোট হবে নাকি সিলেকশন হবে তা নিয়েও আলোচনা উঠেছে। তবে অনেক নেতা বলছেন, এ বিষয়টি কেন্দ্রের সিদ্বান্তের উপর নির্ভর করছে। নির্বাচন পরিচালনা কমিটির চেয়ারম্যান আওয়ামীলীগ নেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু ইউসূফ সূর্য্য বলেন, ইতোমধ্যেই সিরাজগঞ্জ সদর ও বেলকুচি উপজেলা ছাড়া সবকয়টি উপজেলার সম্মেলন শেষ হয়েছে। জেলা সন্মেলনের এখন চুড়ান্ত প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। গঠনতন্ত্রের ভিত্তিতে ও দলীয় সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পরামর্শক্রমেই নতুন নেতৃত্ব নির্ধারণ হবে। সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে ৯ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন।

এ সম্মেলনে সভাপতি পদে প্রার্থীরা হলেন, জেলা আওয়ামীলীগের (ভারপ্রাপ্ত) সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এ্যাডঃ কে এম হোসেন আলী হাসান, সাবেক মন্ত্রী, জেলা আ’লীগের সাবেক সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল লতিফ বিশ্বাস, জেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি পিপি বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রহমান ও সহ-সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা এ্যাডঃ বিমল কুমার দাস এবং সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থীরা হলেন, জেলা আ’লীগের (ভারপ্রাপ্ত) সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সামাদ তালুকদার, কেন্দ্রীয় মহিলা আ’লীগের যুগ্ম সম্পাদক ড. জান্নাত আরা তালুকদার হেনরী, আ’লীগ নেতা সামছুজ্জামান আলো, আ’লীগ নেতা আনোয়ার হোসেন ফারুক ও কেন্দ্রীয় কৃষকলীগ নেতা সাখাওয়াত হোসেন সুইট। সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থীরা বলেন, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে জেলা আ’লীগের এ সন্মেলন অনেক গুরুত্বপূর্ণ। দলীয় সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জেলা কমিটির নেতৃত্বে যাদের দায়িত্ব দেবেন তাদেরকেই মেনে নেয়া হবে। তবে ত্যাগী নেতাদেরই নেতৃত্ব দেয়ার আশাবাদী। উল্লেখ্য, ২০১৫ সালের ৮ জানুয়ারী জেলা আ’লীগের ত্রি-বাষিক সন্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

এ সন্মেলনে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ বিশ্বাস এবং আবু মোহাম্মদ গোলাম কিবরিয়া সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ২০১৬ সালের ১৭ মার্চ সাধারন সম্পাদক আবু মোহাম্মদ গোলাম কিবরিয়া মৃত্যুবরণ করেন। পরবর্তীতে দলের যুগ্ন সাধারন সম্পাদক ও সিরাজগঞ্জ-২ (সদর-কামারখন্দ) আসনের এমপি ডাঃ হাবিবে মিল্লাত মুন্না (ভারপ্রাপ্ত) সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব গ্রহন করেন। পরবর্তীতে আওয়ামীলীগের অভ্যন্তরে দ্বন্ধ ও সংঘাত নিয়ন্ত্রনে অনেকটা ব্যর্থ হন তারা।

এ কারনে ২০২০ সালের ২৯ ডিসেম্বর জেলা কমিটির পদ থেকে তাদেরকে অব্যাহতি দেন কেন্দ্রীয় কমিটি। পরবর্তীতে জেলা আ’লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি এ্যাড: কে.এম হোসেন আলী হাসান (ভারপ্রাপ্ত) সভাপতি এবং সহ-সাধারন সম্পাদক আব্দুস সামাদ তালুকদার (ভারপ্রাপ্ত) সাধারন সম্পাদক হিসাবে দায়িত্ব দেন কেন্দ্রীয় কমিটি। এ কমিটি দলকে সু-সংগঠিত করেছেন বলে অনেকেই এ অভিমত ব্যক্ত করেন।