নেত্রকোণার পরশ-মুসলেহা দম্পতির বিরুদ্ধে কোটি কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ

72

জাহাঙ্গীর আলম,নেত্রকোণা প্রতিনিধিঃ
নেত্রকোণা সদর উপজেলার মারাদীঘি গ্রামের মৃত: হাফিজ উদ্দীনের ছেলে জেলা শহরের নিউটাউন এলাকার বাসিন্দা মো.মাহবুবুল ইসলাম পরশ ও তার স্ত্রী মুসলেহা আক্তার দম্পতির বিরুদ্ধে সরকারি রাজস্ব ও কর ফাঁকিসহ অবৈধ পথে অর্থ-উপার্জন, বিলাসবহুল বাড়ী এবং বিপুল পরিমাণ সম্পত্তির মালিক হওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

এব্যাপারে দূর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) এর মহাপরিচালক ও নেত্রকোণা পুলিশ সুপার বরাবর এলাকাবাসী স্বাক্ষরিত লিখিত অভিযোগ থেকে জানা যায়, পরশ-মুসলেহা দম্পতি নেত্রকোণা সদর উপজেলায় মারাদীঘি মৌজায় ৩শত/৪শত কাঠা জমি ক্রয়, দুইটি বিলাসবহুল বাড়ি তৈরী, নিউটাউন বিলপাড় তিন তলা বিশিষ্ট একটি বাড়ি, কুরপাড় মৌজায় বিলাসবহুল বাড়িসহ প্রচুর সম্পত্তি পরশের স্ত্রী মুসলেহার নামে ক্রয় করা হয়। এছাড়াও বলাই নগুয়া মৌজায় পরশ ও তার স্ত্রী মুসলেহা নামে সম্পত্তি ক্রয়, সাকুয়া মৌজায় যুব উন্নয়ন অফিস সংলগ্ন পরশের স্ত্রী মুসলেহা নামে জমি ক্রয়, ফচিকা মৌজায় বায়রাউড়া ব্রীজ সংলগ্ন বিলাসবহুল বাগানবাড়ি ক্রয়, জেলার আটপাড়া উপজেলায় কৃঞ্চপুর মৌজায় প্রায় দুই কোটি টাকা মূল্যের ফিসারী ক্রয়, ঢাকার মিরপুরের ৮৩,আহম্মেদ নগর কাশেমের মোড়ে “ছায়াবীথি” ভবনের দশম তলায় পরশের নিজ নামে দুইটি বিলাস বহুল ফ্ল্যাট ক্রয় যার আনুমানিক মূল্য তিন কোটি টাকা, ময়মনসিংহ বাঘমারা মৌজায় মেডিক্যাল কলেজের ছাত্রীনিবাস সংলগ্ন চার শতাংশ জমি ক্রয় যার আনুমানিক মূল্য দুই কোটি টাকাসহ কোটি কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ আহরনের ব্যাপারে উল্লেখ করা হয় অভিযোগ পত্রে। মাহবুবুল ইসলাম পরশের স্ত্রীর বড় ভাই মাসুদুর রহমান গ্যালমান তার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অন্তরালে মাদক ব্যবসা ও নারীদের নিয়ে যৌন হয়রানিসহ বিভিন্ন অসামাজিক কাজে জড়িত থাকার অভিযোগও করা হয় অভিযোগ পত্রে।

এ বিষয়ে মো.মাহবুবুল ইসলাম পরশের ব্যক্তিগত মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এসব অভিযোগ সত্য নয়। একটা কুচক্রীমহল আমার বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ এনে ক্ষতি করার চেষ্ঠা করছে।