সার্চ কমিটির মাধ্যমে সরকার তাদের নিজস্ব নাম গুলো দিয়েছে” ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা এমপি

21

সোহেল সরকার ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সংবাদদাতাঃ

বিএনপির সংসদীয় দলের হুইপ ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা এমপি বলেছেন সার্চ কমিটি পুরোপুরি আজ্ঞাবহ।সার্চ কমিটির মাধ্যমে সরকার তাদের নিজস্ব নাম গুলো দিয়েছে।এটা হচ্ছে জনগনের সাথে তাদের তামাশা,রাজনৈতিকদল গুলোর সাথে তামাশা।তারা মনে করে ২০১৮ সালে মত প্রশাসনের ঘাড়ে ভর করে যেভাবে ক্ষমতায় এসেছে ২০২৩ সালেও সেভাবে ক্ষমতায় যাবে।এটাই হলো তাদের পরিকল্পনা। তিনি গতকাল শুক্রবার সন্ধায় সরাইল ও আশুগঞ্জ উপজেলায় টিআর কাবিখায় মাধ্যমে বাস্তবায়ন করা বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প পরিদর্শন শেষে স্থানীয় একটি হাইওয়ে রেস্টুরেন্টে দলীয় নেতাকর্মিদের সাথে মতবিনিময় সভায় সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে এসব কথা বলেন। দ্রব্যমুল্য উর্ধ্বগতি প্রসঙ্গে তিনি বলেন সরকার ইচ্ছে করলে শুল্ক কমাতে পাড়তো,বাজার মনিটরিং করতে পারতো কিন্তু তারা কিছুই করেনি।এই সরকার যেহেতু জনগণের ভোটে নির্বাচিত না সেহেতু জনগণের কাছে তাদের দায়বদ্বতা নেই।সরকার সিন্ডিকেটের মাধ্যমে কৃত্রিম সংকট তৈরি করে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যে দাম বাড়াচ্ছে।তাই তারা দ্রব্য মুল নিয়ন্ত্রনে কাজ করছে না। তিনি বলেন সরকার জনগনের করের টাকায় লবিস্ট নিয়োগ করেছে।আর বাংলাদেশে রাজনৈতিক লবিস্ট নিয়োগ কালচার আওয়ামীলীগই নিয়ে এসেছে। ২০০৪,২০০৫,২০০৬ সালে পরবর্তিতে ২০০৮ সালে সরকার লবিষ্ট নিয়োগ করেছিল।জনগণের টাকায় সরকার আবার লবিস্ট নিয়োগ করেছে। এগুলো একদিন জনগণের কাছে জবাবদীহিতা করেেত হবে।এই লবিস্ট নিয়োগ করে সরকার গুম,খুন ও বিচার বর্হিভুত হত্যাকান্ডের অভিযোগ থেকে পার পাবে না। এসময় মতবিনিময় সভায় জেলা বিএনপি‘র সাবেক সভাপতি মো: হাফিজুর রহমান মোলা কচি,আশুগঞ্জ উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সেলিম পারভেজ,সরাইল উপজেলা বিএনপির আহবায়ক মো: আনিসুর রহমান ঠাকুর,সদস্য সচিব এডভোকেট নুরুজ্জামান লস্বর তপু, আশুগঞ্জ উপজেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটির সদস্য হাজী মো: জসিম উদ্দিন,মো: পারভেজ খা, সরাইল উপজেলা যুবদলের সহসভাপতি মো: জুয়েল আলী,আশুগঞ্জ উপজেলা যুবদলের আহবায়ক মো: আলমগীর,সদস্য সচিব মো: নাসির উদ্দিন,উপজেলা সেচ্ছাসেবক দলের সদস্য সচিব মো: হুমায়ুন কবির,উপজেলা ছাত্রদলের আহবায়ক মো: তোফাজ্জল হোসেন

মারুছ,সদস্য সচিব মো: রাফিসহ সরাইল ও আশুগঞ্জ উপজেলার দলের অংগ সংগঠনের নেতাকর্মিরা উপস্থিত ছিলেন।