চবি শিক্ষার্থীর দায়িত্ব গ্রহণ করলেন জেলা প্রশাসন ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান

21

সোহেল সরকার,ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রতিনিধিঃ বিশেষ সংবাদদাতা;ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ পাওয়া শিক্ষার্থী রানা মিয়ার পড়াশুনার খরচ চালানোর দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন জেলা প্রশাসন ও সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান।আজ রোববার (২০ফেব্রুয়ারি)দুপুর দেড়টায় নিজ কার্যালয়ে ডেকে নিয়ে জেলা প্রশাসক মোঃ শাহ্গীর আলম ও সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রানার হাতে পড়াশুনার খরচ বাবদ প্রাথমিকভাবে নগদ ২৫ হাজার টাকা তুলে দেন।
জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, একটি জাতীয় দৈনিকের অনলাইন সংস্করণে রানা মিয়ার বিষয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হলে প্রতিবেদনটি জেলা প্রশাসক মোঃ শাহ্গীর আলমের দৃষ্টিগোচর হয়। এরপরই রানার পড়াশুনার খরচ চালানোর উদ্যোগ নেয় জেলা প্রশাসন।
জেলা প্রশাসনের সার্বিক সহযোগিতায় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক প্রথম বর্ষ থেকে স্নাতকোত্তর পর্যন্ত রানাকে সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফিরোজুর রহমান ওলিওর পক্ষ থেকে প্রতি ছয় মাস পরপর ২৫ হাজার টাকা দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। এ জন্য রানাকে প্রতি ছয় মাস পর স্বশরীর, অনলাইন বা ই-মেইলের মাধ্যমে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) কাছে একটি দরখাস্ত লিখতে হবে।পরে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রানা মিয়ার ব্যাংক হিসাবে ২৫ হাজার টাকা পাঠিয়ে দেবেন। তবে জেলা প্রশাসক রানাকে ভালো ফলাফল অব্যাহত রাখার শর্ত দিয়েছেন।রানা মিয়ার বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নবীনগর উপজেলার ইব্রাহিমপুর ইউনিয়নের বেলানগর গ্রামে। সে বেলানগর গ্রামের আইন উদ্দিনের ছেলে। তার আরও দুই ভাই-বোন আছে। রানার বাবা গ্রামের অন্যের জমিতে কাজ করেন।রানা মিয়া বর্তমানে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের স্নাতক প্রথম বর্ষের ছাত্র। ক্লাশ শুরু না হওয়ায় বর্তমানে সে থাকে।রোববার দুপুরে নিজ কার্যালয়ে রানা মিয়াকে ডেকে নিয়ে যান জেলা প্রশাসক শাহ্গীর আলম। এ সময় তিনি রানার পড়াশোনা ও পরিবারের বিষয়ে খোঁজ নেন। তিনি রানাকে পড়াশোনার বিষয়ে দিকনির্দেশনা দেন।এ সময় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ রুহুল আমিন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আশ্রাফ আহমেদ, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান ফিরোজুর রহমান, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইয়ামিন হোসেন, সাংবাদিক শাহাদৎ হোসেন, মাসুক হৃদয়, শফিকুল ইসলাম, আবু হাসনাত রাফি, আজিজুল আলম, মাইনুদ্দিন রুবেল, মাজহারুল করিম প্রমুখ।
রানা মিয়া বলেন, জেলা প্রশাসক মোঃ শাহ্গীর আলম স্যার ও সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফিরোজুর রহমান স্যারের সহায়তার আশ্বাসে পড়াশোনার খরচ চালানোর দুশ্চিন্তা দূর হয়েছে। আমি সবার কাছে কৃতজ্ঞ।
এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসক শাহ্গীর আলম বলেন, জেলা প্রশাসনের সার্বিক সমন্বয় ও ব্যবস্থাপনায় রানাকে স্নাতক থেকে স্নাতকোত্তর পর্যন্ত প্রতি ছয় মাস অন্তর অন্তর ২৫ হাজার টাকা করে দিবেন সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান।