শিক্ষক পুত্রের বিরুদ্ধে পিতার মামলা : গ্রেপ্তারী পরোয়ানা জারি

25

মোঃ আব্দুল হান্নান,নাসিরনগর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া), জেলার নাসিরনগর উপজেলার গুনিয়াউক ইউনিয়নের নিশ্চিন্তপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোঃ শাহাবুদ্দিন আহমেদ দানু মিয়া (৪২)এর বিরুদ্ধে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে পেনাল কোডের ৩২৩/৩৮০ ধারায় ২য় বারের মত মামলা দায়ের করে তার পিতা মোঃ আলী রাজা। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে শিক্ষক শাহাবুদ্দিন আহমেদ দানুর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারী পরোয়ানা জারি করে।

জানা গেছে, পিতার সম্পত্তি জোর পূর্বক আত্মসাৎ করে পিতাকে প্রায় ২০ বৎসর যাবৎ ভরণ পোষণ না করে গত ১২ ডিসেম্বর ২০২১ রড দিয়ে বৃদ্ধ পিতা আলী রাজাকে পিটিয়ে আহত করার অপরাধে উক্ত শিক্ষক সাহাবুদ্দিন আহমেদ দানু মিয়ার বিরুদ্ধে এ মামলা দায়ের করা হয়। জানাগেছে, এর পূর্বেও ২০২০ সালের ২৮ ডিসেম্বর ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজ্ঞ আদালতে সি,আর ৩৮৬ নং মামলা দায়ের করেছিল বৃদ্ধ পিতা আলী রাজা (৮০)। পরবর্তীতে স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে আপোষের কথা বলে ১৫০ টাকার ননজুডিসিয়াল ষ্ট্যাম্পে আপোষ নামায় চুক্তি সম্পাদন করে উক্ত মামলা থেকে রেহাই পায় শিক্ষক সাহাবুদ্দিন আহমেদ দানু মিয়া। কিন্তু পরবর্তীতে চুক্তি শর্ত অমান্য করে পিতাকে মারপিট করার অপরাধে আবারও ২য় বারের মত সি,আর ৫৪৩/২০২১ নং মামলা দায়ের করে বৃদ্ধ পিতা আলী রাজা।

সাহাবুদ্দিন আহমেদ দানু মিয়ার বোন হামিদা বেগম জানান, সাহাবুদ্দিন আহমেদ দানু মিয়া ও তার স্ত্রী দুজনেই প্রাথমিক বিদ্যালয়েুর শিক্ষক। এই শিক্ষক দম্পত্তি দানু মিয়ার মাকে ভরণপোষণ না করায় ও খোঁজ খবর না নেওয়ায় তার মা পানিতে ডুবে মৃত্যু বরণ করেন। বর্তমানে ২০ বৎসর যাবৎ সাহাবুদ্দিন আহমেদ দানু মিয়ার পিতা বৃদ্ধ আলী রাজাকে লালন পালন করছে হামিদা বেগম। বাকী সম্পত্তির জন্য পিতা আলী রাজাকে মেরে ফেলারও পরিকল্পনা করে শিক্ষক সাহাবুদ্দিন আহমেদ দানু মিয়া। সাহাবুদ্দিন আহমেদ দানু মিয়ার পিতা বৃদ্ধ আলী রাজা জানান, আমার বাকী সম্পত্তির জন্য আমাকে রড দিয়ে পিটিয়ে আহত করেছে। যেকোন সময় মেরেও ফেলতে পারে। তিনি এমন অত্যাচারী শিক্ষক পুত্রের বিষয়ে দেশ বাসী সহ সকলের নিকট ন্যায় বিচার দাবী করেন।

এ বিষয়ে জানতে চেয়ে শিক্ষক সাহাবুদ্দিন আহমেদ দানু মিয়ার সাথে মোবাইল ফোনে একাধিকবার যোগযোগ করেও কথা বলা সম্ভব হয়নি।