তালতলীতে গৃহবধূ ধর্ষনে পাঁচ মাসের অন্তঃসত্ত্বা

26

আশরাফুল ইসলাম সাওন,
তালতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি: তালতলীতে বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষনের অভিযোগ চার মাসের অন্তঃসত্ত্বা হয়েছেন এক গৃহবধূ গত শুক্রবার দুপুরে সাংবাদিক দের কাছে এমন অভিযোগ করেছেন তিনি।

স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, প্রায় ১৫ বছর আগে উপজেলার সোনাকাটা ইউনিয়নের ৮০ বছরের এক বৃদ্ধর প্রথম স্ত্রী মারাগেলে । সন্তানরা তাকে দ্বিতীয় বিয়ে করান ।তাদের দ্বিতীয় সংসারে চারটি ছেলে সন্তান হয় । এর পরে কয়েক বছর আগে ঐ বৃদ্ধ প্যারালাইসিস হয়ে অসুস্থ হলে সংসারের হাল ধরন ঐ গৃহবধূ । ফকির হাট মাছ বাজারে মাছ বেঙে সংসার চালাতেন । এর মধ্যে গত বছর পৌস মাসে ঐ গৃহবধূর সাথে পরকিয়ায় জরিয়ে পরেন স্থানীয় মাছ বাজারের শ্রমিক কদম মুন্সির ছেলে মোজাম্মেল মুন্সি । এরমধ্যে ঐ গৃহবধূর শারীরিক পরিবর্তনের বিষয়টি নজরে পরে ঐ প্রথম স্ত্রীর মেয়ের চোখে বিষয়টি তিনি জিজ্ঞেস করলে তখন মোজাম্মেল মুন্সির সাথে তার পরকীয়ার কথা জানতে পারেন এবং এ ও জানতে পারেন তিনি সন্তানসম্ভবা। এ বিষয় আইনের আশ্রয় নিতে চাইলে স্থানীয় প্রভাবশালীরা টাকা পয়সা দিয়ে বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার জন্য উঠেপড়ে লেগেছে বলে জানাগেছে ।

অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূ,জানান স্বামী বার্ধক্যজনিত কারনে
বিছানায় প্রায় দু বছর,এ জন্য তিনি স্বামী সন্তানের জন্য ফকির হাট মাছ বাজারে কাজ করে সংসার চালাতেন।

অভাবের এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে তার সাথে পরকিয়ায় জড়িয়ে পড়েন স্থানীয় মাছ বাজারের শ্রমিক কদম মুন্সির ছেলে মোজাম্মেল মুন্সি (৩০) তার শারীরিক সম্পর্কে অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েনঐ (গৃহবধূ)।

মোজাম্মেলকে বিয়ের কথা বলার পর কর্ণপাত করেননি। এরমাঝে সময় পেরিয়ে গেছে প্রায় চারমাস। অবশেষে সাংবাদিক দের কাছে মুখ খুলেছেন তিনি।

গৃহবধূর স্বামী (৮০) জানান,প্রথম স্ত্রী মারাযাওয়ার পর সন্তানরা আমাকে দেখাসুনার জন্য দ্বিতীয় বিয়ে করায়। কয়েক বছর আগে আমি অসুস্থ হলে,দ্বিতীয় স্ত্রী ফকির হাট মাছ বাজারে কাজ করে চার সন্তান সহ আমাদের খাওয়াতো। এখন এ রকম ন্যক্কার জনক কাজ করায় আমার স্ত্রী কাজে যেতে পারছেনা আমরা এখন না খেয়ে মরার অবস্থা। আমি এই ঘটনার বিচার চাই।

স্থানীয় একাধিক ব্যক্তি বলেন,যে ঘটনা এছিন মল্লিকের স্ত্রীর সাথে ঘটেছে এতে করে নিন্ম আয়ের মানুষরা তাদের মা বোন ও স্ত্রী দের আর ফকির হাট মাছ বাজারে কাজে পাঠাবেনা। এর প্রভাব ফকির হাট মাছ বাজারের উপর পরবে। আমরা এই ঘটনার কঠিন শান্তি দাবি করছি।

স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. ছালাম হাওলাদার বলেন,এছিন মল্লিকের পরিবার ঐ মহিলার আয়ের উপর বেঁচেছিল পাচটি জীবন,এই ঘটনার পর তাদের রুটিরুজি বন্ধ হয়েগেছে, এলাকার মা বোনেরা ফকির হাট বাজারে এখন কাজ করতে চায়না। আমি এ ঘটনার কঠিন বিচার দাবি করছি।

অভিযুক্ত মোজাম্মেলের ০১৭৭৭৩৩৬৫৪৪ মুঠোফোনে কল দিয়ে তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

তালতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি মো.সাখাওত হোসেন (তপু) জানান, এ বিষয় আমাদের কাছে কেউ অভিযোগ করেনি অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হব।