সারিয়াকান্দিতে প্রাণিসম্পদ প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত

18

আর.এ রাশেদ, সারিয়াকান্দি (বগুড়া) প্রতিনিধিঃ বগুড়া সারিয়াকান্দিতে প্রদর্শনী মেলার প্রধান আকর্ষণ ছিলো মরুর দেশের গারল। মেলায় বিভিন্ন ধরনের প্রাণী দেখতে ছিলো দর্শনার্থীদের ভীড়।বুধবার সকালে সারিয়াকান্দি প্রাণিসম্পদ অফিস চত্বরে প্রদর্শনী মেলার উদ্বোধন করেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আব্দুল হালিম।সভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ শাহ আলম। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা গোলাম মোর্শেদ, উপজেলা সমাজসেবা অফিসার সামিউল আলম, বিআরডিবি কর্মকর্তা রাজ্জাক উল হায়দার, ডাঃ মাহে আলম প্রমুখ।মেলায় ষাঁড় গরু, গাভী, মহিষ, গারল, দই, ঘি, মাখন, ক্রিম সাপোর্টার, খরগোশ, বিভিন্ন প্রজাতির পাখি (বাজুরিকা, কুকাটেল, কবুতর, বেঙ্গল পাখি, বিদেশি ঘুঘু, ডায়মন্ড ঘুঘু, প্রিন্স পাখি), ডিম ফোটানো ও চোর ধরার মেশিন, পাকিস্তানি মুরগি, ব্রয়লার মুরগী, লেয়ার মুরগি, বিভিন্ন প্রজাতির ছাগল, টার্কি হাস, চিনা হাঁস, রাজহাঁস, পাতিহাঁসের স্টলসহ ২৭ টি প্রাণির প্রদর্শনী স্টল আছে।
এ বছরের মেলার প্রধান আকর্ষণ মরুর দেশের গারল। মরুর দেশের গারল একনজর দেখার জন্য যমুনা গারল খামারের সামনে দর্শনার্থীদের ভীড় সবচেয়ে বেশি। স্টলের সত্ত্বাধিকারী গারল খামারের মালিক আশরাফ আলী জানান, মরুর দেশের গারল এখন আমি এদেশেই পালন করছে এবং লাভবান হয়েছি।২৫ টি গারল হতে গত এক বছরে আমার খামারে শতাধিক গারল হয়েছে। এর মধ্যে অনেক গারল বিক্রিও করেছি। গারল চরের চারণভূমির কাচা ঘাস খায়। বাড়তি খাবার এতে খুবই কম দিতে হয়। মেলার আরেক আকর্ষণ সাড়ে নয় মণ ওজনের ষাঁড় গরু। এর মালিক পৌর এলাকার কুঠিবাড়ী গ্রামের আনছার প্রাং শখ করে নাম রেখেছেন সরকার। তিনি গরুটিকে বুট, ভূষি এবং অনুপম কলা খাওয়ান।এর বয়স মাত্র ১ বছর ৫ মাস।
মেলার আরেক আকর্ষণ ৩২ লিটার দুধ দেয়া দুধেল গাভী। এর মালিক সদর ইউনিয়নের দীঘলকান্দি গ্রামের মতিন মিয়া জানান,গাভীটির বাছুর মাত্র ৬ মাস বয়সে গর্ভবতী হয়েছে।