চুয়াডাঙ্গার পাঁচ ও মেহেরপুরের ৯টিসহ দ্বিতীয় ধাপে ৮৪৮টি ইউনিয়নে ভোটগ্রহণ ১১ নভেম্বর

13

চুয়াডাঙ্গা সদর সংবাদদাতা:
মনোনয়নপত্র জমা ১৭ অক্টোবর ও যাচাই-বাছাই ২০ অক্টোবর এবং প্রত্যাহার করা যাবে ২৬ অক্টোবর চুয়াডাঙ্গা জেলা ৫টি ইউনিয়নসহ দ্বিতীয় ধাপের ৮৪৮টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের (ইউপি) তফসিল ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ঘোষিত তপশিল অনুযায়ী আগামী ১১ নভেম্বর ভোট অনুষ্ঠিত হবে। বুধবার নির্বাচন কমিশনের সভায় এ সময়সূচি চূড়ান্ত হওয়ার পর ইসি সচিব মো. হুমায়ুন কবীর খোন্দকার এ ধাপের ভোটের তফসিল ঘোষণা করেন। চেয়ারম্যান, সাধারণ সদস্য ও সংরক্ষিত নারী সদস্য পদে প্রার্থী হতে আগ্রহীরা আগামী ১৭ অক্টোবর পর্যন্ত রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে মনোনয়নপত্র জমা দিতে পারবেন। ২০ অক্টোবর মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই এবং প্রত্যাহার করা যাবে ২৬ অক্টোবর পর্যন্ত। ভোটগ্রহণ হবে ১১ নভেম্বর। ঘোষিত তফসিলে চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার দামুড়হুদা সদর, জুড়ানপুর, কার্পাসডাঙ্গা ও কুড়–লগাছি। জীবননগর উপজেলায় শুধুমাত্র সীমান্ত ইউনিয়নে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার কাথুলী, তেতুলবাড়িয়া, বামন্দী, মটমুড়া, সাহারবাটি, মুজিবনগর উপজেলার দারিয়ারপুর, মোনাখালী, বাগোয়ান ও মহাজনপুর। ঝিনাইদের মহেশপুর উপজেলার এসবিকে, ফতেপুর, পান্তাপাড়া, স্বরূপপুর, শ্যামকুড়, নেপা, কাজীরবেড়, যাদবপুর, নাটিমা, মান্দারবাড়িয়া ও আজমপুর। কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার ফুলবাড়িয়া, বারুইপাড়া আমলা, সদরপুর, পোড়াদাহ, কুর্শা, মালিহাদ, আমবাড়িয়া, বহুলবাড়িয়া, তালবাড়িয়া ও ছাতিয়ান। ভেড়ামারা উপজেলার চাদগ্রাম, বাহাদুরপুর, বাহিরচর, ধরমপুর, জুনিয়াদহ ও মোকরিমপুর ইউনিয়নে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

গতকাল বুধবার প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নুরুল হুদার সভাপতিত্বে কমিশন সভায় সিরাজগঞ্জ-৬ আসনের উপনির্বাচন, সপ্তম ধাপের পৌর নির্বাচনেরও তারিখও চূড়ান্ত করা হয়। আগামী ২ নভেম্বর ওই নির্বাচন হবে। দ্বিতীয় ধাপের ৮৪৮টি ইউপির মধ্যে ২০টিতে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোটগ্রহণ হবে। তবে তৃতীয় ধাপের ইউপি ভোটের তফসিল ও নারায়ণগঞ্জ সিটিসহ অন্যান্য নির্বাচন নিয়ে আগামী সপ্তাহে কমিশন বৈঠকে সিদ্ধান্ত আসতে পারে। এছাড়া ডিসেম্বরের মধ্যে নির্বাচন উপযোগী সব ইউপি ও পৌরসভার ভোট ডিসেম্বরের মধ্যে শেষ হবে। এ সময় ইসির অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার দেবনাথ, এনআইডি উইংয়ের ডিজি একেএম হুমায়ুন কবীর, ইসির যুগ্ম-সচিব ফরহাদ আহাম্মদ খান, এসএম আসাদুজ্জামান উপস্থিত ছিলেন। করোনা ভাইরাস মহামারীর মধ্যে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের প্রথম ধাপের ৩৬৪ ইউপির ভোট শেষ হয়েছে। এ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ, জাতীয় পার্টিসহ বিভিন্ন দল অংশ নিলেও বিএনপি নেয়নি না। কমিশনের সচিব হুমায়ুন কবীর খোন্দকার সাংবাদিকদের বলেন, পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠানের বিষয়ে আমরা স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় থেকে চিঠি পেয়েছি। তবে আপনারা জানেন, ইউনিয়ন পরিষদসহ স্থানীয় পরিষদের জনপ্রতিনিধিরাই জেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোটার। ফলে এই ভোট শেষ না হওয়া পর্যন্ত জেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠান করতে গেলে কিছুটা সমস্যায় পড়তে হবে। যে কারণে কমিশন সিদ্ধান্ত নিয়েছে পরিষদের নির্বাচন শেষ হওয়ার পরেই জেলা পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচন কমিশনের ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, চেয়ারম্যান, সাধারণ সদস্য ও সংরক্ষিত নারী সদস্য পদে প্রার্থী হতে আগ্রহীরা আগামী ১৭ অক্টোবর পর্যন্ত রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে মনোনয়নপত্র জমা দিতে পারবেন। মনোনয়নপত্র বাছাই ২০ অক্টোবর, বাছাইয়ের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আপিল ২১ থেকে ২৩ অক্টোবর, আপিল নিষ্পত্তি ২৪ ও ২৫ অক্টোবর, প্রার্থিতা প্রত্যাহার ২৬ অক্টোবর, প্রতীক বরাদ্দ ২৭ অক্টোবর এবং ভোট গ্রহণ ১১ নভেম্বর।ডিসেম্বরের মধ্যে দেশের সব ইউনিয়ন পরিষদের ভোট অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়ে ইসি সচিব বলেন, ‘তৃতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন নিয়ে আমরা কাজ করছি। আগামী সপ্তাহে কমিশনের পরবর্তী সভা অনুষ্ঠিত হবে। ওই সভায় তৃতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচনের তফসিলের সিদ্ধান্ত আসতে পারে।’ তবে কত ধাপে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন সম্পন্ন করা হবে এ বিষয়ে তিনি কোনো মন্তব্য করেননি।

নিউজটি শেয়ার করুন...
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •