নারায়ণগঞ্জের দুই জঙ্গি আস্তায় মিলেছে বোমা ও বোমা তৈরির সরঞ্জাম

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি :
নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলার ধুপ্তারা ইউনিয়নের পাঁচগাঁও ও বন্দর উপজেলার ধামগর কাজীপাড়া এলাকায় দুইটি জঙ্গি আস্তানায় চালানো শ্বাসরুদ্ধকর অভিযান সমাপ্ত হয়েছে। অভিযানে দুইটি বাড়ির ভিতর বোমা ও বোমা তৈরির বিপুল পরিমাণ সরঞ্জাম পাওয়া গেছে। রবিবার (১১ জুলাই) বিকেল থেকে রাত রাত সাড়ে তিনটা পর্যন্ত প্রায় আট ঘণ্টার অভিযান শেষে এই তথ্য জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিট প্রধান মো: আসাদুজ্জামান৷সিটিটিসি কর্মকর্তারা জানান, বন্দরের কাজী পাড়ার বাড়িটিতে মো: নাঈম নামে এক মসজিদের ইমাম বসবাস করতেন। সাংগঠনিক ভাবে তিনি মেজর ওসামা নামে পরিচিত। নাঈম নব্য জেএমবির সামরিক সদস্য এবং বোমা তৈরির প্রশিক্ষক।]বন্দরের অভিযান শেষে সিটিটিসি প্রধান আসাদুজ্জামান বলেন, রবিবার বিকেলে ঢাকার কেরানীগঞ্জ থেকে নাঈমকে গ্রেফতার করা হয়। তাঁর দেয়া তথ্যানুযায়ী বন্দরের ওই বাড়িতে অভিযান চালানো হয়। তার আগে রাজধানীর মিরপুর থেকে গ্রেফতার তিন জঙ্গির মধ্যে সামসি বারিকের দেয়া তথ্যানুযায়ী নাঈমকে গ্রেফতার করা হয়। সে এই বাড়িটিতে সপরিবারে বসবাস করতো। সম্প্রতি পরিবারের সদস্যদের গ্রামে পাঠিয়ে দিয়ে এই বাড়িটিতে একাই বোমা তৈরি করছিলো।এর আগে বিকেল ৫টা থেকে আড়াইহাজার উপজেলার পাঁচগাঁও গ্রামের জঙ্গি আস্তানাটি ঘিরে রেখেছিল সিটিটিসি৷ রাতে সিটিটিসি বাড়ির ভিতরে অভিযান শুরু করে৷ অভিযান শুরুর পর রাত পৌনে ১১ টার দিকে নিরাপত্তা বেষ্টনীর বাইরে থেকে বিস্ফোরণের শব্দ পাওয়া যায়৷ এরপর ১১টা ১০ মিনিটের মধ্যে আরও দুটি বিস্ফেরণের শব্দ পাওয় যায়৷অভিযান শেষে সিটিটিসির প্রধান মো: আসাদুজ্জামান বলেন, বাড়ির ভিতর তিনটি বোমা (আইইডি) বিস্ফোরণ ঘটিয়ে নিস্ক্রিয় করেছে বোমা ডিস্পোজাল ইউনিট৷তিনি জানান, ঢাকা থেকে আব্দুল্লাহ আল মামুন নামে একজনকে গ্রেফতার করা হয়৷ তিনি পাঁচগাঁও গ্রামের ওই বাড়ির পার্শ্ববর্তী মসজিদের মুয়াজ্জিন ছিলেন৷ নব্য জেএমবির সদস্য মামুনকে গ্রেফতারের পর সে বোমা ও বিপুল পরিমাণ বোমা তৈরির সরঞ্জাম মজুদ থাকা এই বাড়ির সন্ধান দেয়৷ এই মামুন গত ১৮ মে সিদ্ধিরগঞ্জের সাইনবোর্ডে পুলিশ বর্ডারের সামনে আইইডি বোমা রেখেছিল৷ সে যেই মোটরসাইকেলযোগে বোমাটি সেখানে রেখেছিল সেটিও জব্দ করা হয়েছে বলে জানান সিটিটিসির প্রধান৷নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ দুইটি অভিযানে সহায়তা করেছেন । কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিটের কর্মকর্তাদের সাথে উপস্থিত ছিলেন, জেলার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলম।