মানবিক সহায়তার জন্য সকলকে বিনীত ভাবে অনুরোধ জানিয়েছেন আবুল হাসানের পিতা

49

প্রতিবেদন সংগ্রহেঃ- মেহেদী হাসান রিপন,স্টাফ রিপোর্টারঃ-

 

ছেলেটির নাম আবুল হাসান সুমন। পিতাঃ মফিজুল ইসলাম সরকার। গ্রামঃ মহিরণ,(৭ নং ওয়ার্ড) ডাক+ উপজেলাঃ বাঘারপাড়া,জেলাঃ যশোর। ছেলেটির পিতার বাঘারপাড়া বাজারে এক সময়ে ইসলামিয়া লাইব্রেরী নামে একটি বইয়ের দোকান ছিলো। সুমন ছেলেটি বাবার সংসারের হাল ধরতে মালয়েশিয়া যায়। স্বপ্ন ছিলো বাবার কষ্টের সংসারে হাসি ফুটাবে।একমাত্র ছোট বোন টাকে লেখাপড়া শেখাবে।

সব কিছু ঠিকঠাক চলছিলো। গত রমযানের ঈদের এক সপ্তাহ আগে মালয়েশিয়া থেকে আসা একটি ফোনে পরিবারের উপর স্বপ্ন ভেঙ্গে চুরমার হয়ে যায়। সুমন অসুস্থ,হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। মালেশিয়ার রুমমেটরা বুঝতে পারছেনা সুমনের কি হয়েছে।সুমনের কথা বন্ধ হয়ে গেছে। পরে আইসিইউতে ট্যান্সফার করে একটানা ১০ দিন জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষনে থেকে হাজারো মানুষের প্রার্থনায় কথা বলতে সক্ষম হয় সুমন।
ডাক্তারি পরীক্ষায় জানা যায় সুমনের কিডনি ড্যামেজ।একমাত্র উপার্জন অক্ষম ছেলেটির করুণ অবস্থায় পিতা- মাতা আর ছোট বোনটির কান্নায় অশ্রুসিক্ত হয়ে যায় পুরো গ্রামবাসি।

অবশেষে প্রবাসী বাংলাদেশিদের সহায়তায় সুমনকে দেশে ফেরানো হয়।বিমানবন্দর থেকে সরাসরি ঢাকা কিডনি ফাউন্ডেশন ভর্তি হয়।
ছেলেটির চিকিৎসার জন্য দরকার কয়েক লক্ষ টাকা। যা তার দরিদ্র পিতার পক্ষে চালানো সম্ভব নয়। আমার প্রতিবেশি হিসাবে পোষ্টটা দিলাম।আপনাদের সামান্য সহযোগিতায় হয়তো ফিরবে একটি জীবন। যে যার অবস্থান থেকে সাধ্য অনুযায়ী সহযোগিতা করুণ প্লিজ। যে যা পারেন সহযোগিতার হাত বাড়ান।

সাহায্য পাঠাবার ঠিকানা-

বিকাশ নং;- ০১৯৭১২৩০৮৫১.
ব্যাংক হিসাব নং ০২০০০১১৪১০২০২,

শামিমা আক্তার,অগ্রনী ব্যাংক, বাঘারপাড়া শাখা,যশোর।

(দয়াকরে পোষ্টটা সকলে শেয়ার দিলে উপকার হবে)