তাঁতী লীগ নেতার হত্যাকাণ্ডের রহস্য উম্মোচন, আসামী গ্রেফতার

10

নিজস্ব  প্রতিবেদকঃ

যশোরে তাঁতী লীগ নেতার কুলেস হত্যাকাণ্ডের রহস্য উম্মোচন ও আসামিকে গ্রেফতার করেছে সিআইডি।

গ্রেফতারেকৃত হলেন মো. শরিফুল ইসলাম জিতু (৩২ )।

এ বিষয়ে নিশ্চিত করেন সিআইডির অতিরিক্ত ডিআইজি মো. ইমাম হোসেন।

বুধবার (২৪ নভেম্বর) নারায়ণগঞ্জ জেলার ফতুল্লা থানার এনায়েতনগর এলাকা হতে তাকে গ্রেফতার করা হয় বলে জানান সিআইডি।

সিআইডি বলেন, যশোর কোতয়ালী থানার মোল্লাপাড়া কবরস্থানের পাশে রাত সাড়ে ১০ টার দিকে একটি চায়ের দোকানে আড্ডা দিচ্ছিলেন জেলা তাঁতী লীগের সাবেক আহ্বায়ক আব্দুর রহমান কাকন ( ৩৫ )। এ সময় অতর্কিত তার উপর হামলা করে দ্রুত পালিয়ে যায় অজ্ঞাতনামা আসামীরা।

পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে যশোর ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের জরুরী বিভাগে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে বলে জানান সিআইডি।

উক্ত ঘটনায় মৃতের মা মোছাঃ সুফিয়া বেগম ( ৫৫ ) অজ্ঞাতনামা আসামীদের বিরুদ্ধে যশোর কোতয়ালী থানায় অভিযোগ দায়ের করেন।

ঘটনাটি দেশজুড়ে বেশ চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করে এবং বিভিন্ন প্রিন্ট , অনলাইন ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় বেশ গুরুত্বের সাথে প্রচারিত হলে সিআইডি ঘটনাটির ছায়া তদন্ত শুরু করে বলে জানান সিআইডি।

সিআইডি আরও বলেন, সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার মুক্তা ধর পিপিএম এর সার্বিক দিক নির্দেশনায় এলআইসি’র একাধিক চৌকস টিম দেশের বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করে উক্ত হত্যাকাণ্ডে নেতৃত্বদানকারীদের গ্রেফতার করা হয়।

সিআইডি বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃত আসামী স্বীকার করে যে , তার সাথে ভিকটিম আব্দুর রহমান কাকনের বিভিন্ন বিষয়াদি নিয়ে দীর্ঘদিন যাবৎ বিরোধ চলে আসছিলো । সেই বিরোধের জের ধরেই পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী ১৭ নভেম্বর রাতে তাকে একা পেয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে উক্ত চায়ের দোকানে প্রবেশ করে ধারালো ছুরি দ্বারা উপর্যুপরি আঘাত করে মৃত্যু নিশ্চিত করে দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করে।

উল্লেখ্য যে , গ্রেফতারকৃত আসামী যশোর কোতয়ালী থানার অস্ত্র আইন ,খুন ,বিস্ফোরক দ্রব্য আইন ,ডাকাতির প্রস্তুতি , মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইন ও অন্যান্য আইনে রুজুকৃত বিভিন্ন মামলার আসামী । খুন মামলায় তার যাবজ্জীবন সাঁজা হলে সে প্রায় ৫ বছর জেল খেটে জামিনে বেরিয়ে আসে।

নিউজটি শেয়ার করুন...