আশুলিয়ায় আসিফ হত্যার প্রধান আসামী বাদশা সহযোগীসহ, বিদেশী পিস্তলসহ গ্রেফতার

2

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

ঢাকার আশুলিয়া থানা এলাকা থেকে খিলগাঁওয়ের আসিফ হত্যার প্রধান আসামী, শীর্ষ সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ী মোঃ জিন্নাত আলী ওরফে বাদশা সহযোগীসহ গ্রেফতার করেছ র‍্যাব-৩

বেশ কিছু সুনির্দিষ্ট অভিযোগে র‌্যাব জানতে পারে যে, শীর্ষ সন্ত্রাসী জিন্নাতের নেতৃত্বে তার সহযোগী মোঃ আলমগীরসহ কতিপয় অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী খিলগাঁও, বাড্ডা এলাকায় সন্ত্রাসী কার্যকলাপ, হত্যা এবং মাদক ব্যবসা করছে। এরই প্রেক্ষিতে র‌্যাব-৩ ছায়া তদন্ত করে জানতে পারে যে, খিলগাঁও এলাকায় আধিপত্য বিস্তার ও মাদক ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ করার জন্য জিন্নাত গত ১৬ এপ্রিল ২০২১ তারিখে পুলিশের সোর্স আসিফকে হত্যা করে আশুলিয়া এলাকায় আত্মগোপন করে আছে। তবে সে আত্মগোপনে থাকলেও তার সহযোগীদের সহায়তায় সে খিলগাঁও এলাকায় মাদক ব্যবসা ও সন্ত্রাসী কার্যকলাপ চালিয়ে যাচ্ছে। জড়িতদের আইনের আওতায় নিয়ে আসতে র‌্যাব-৩ গোয়েন্দা নজরদারি বৃদ্ধি করে। এরই গতকাল বুধবার ( ১ সেপ্টেম্বর) গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-৩ এর একটি বিশেষ আভিযানিক দল ঢাকা জেলার আশুলিয়া থানার নিশ্চিন্তপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে শীর্ষ সন্ত্রাসী মোঃ জিন্নাত আলী ওরফে বাদশা (২৮) ও মোঃ আলমগীর (৩০) নামের দুইজন কে গ্রেফতার করে। এসময় তাদের কাছে থেকে ১ টি বিদেশী পিস্তল,১ টি ম্যাগাজিন, ৩ রাউন্ড গুলিসহ ২০০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়।

র‍্যাবের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (মিডিয়া) বীণা রাণী দাস জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আসামীদ্বয় জানায় যে, রাজধানীর খিলগাঁও ও বাড্ডা এলাকায় মাদক ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ ও আধিপত্য বিস্তারের জন্য তারা অবৈধ অস্ত্র ব্যবহার করে মাদক ব্যবসা, চাঁদাবাজী ও সন্ত্রাসমূলক কর্মকান্ড পরিচালনা করে আসছিল। তাদের অবৈধ মাদক ব্যবসায় যারা বাধা সৃষ্টি করে, তাদেরকে তারা অস্ত্র প্রদর্শন করে ভয়ভীতি প্রদর্শন করত। খিলগাঁও থানা পুলিশের সোর্স ভিক্টিম মৃত আসিফ তার কয়েকজন সহযোগীকে পুলিশ দিয়ে ধরিয়ে দেয়। এতে ধৃত জিন্নাত ক্ষিপ্ত হয়ে আসিফকে হত্যা করার পরিকল্পনা করে। পরিকল্পনা অনুযায়ী ১৫ এপ্রিল ২০২১ রাতে খিলগাঁও থানাধীন মেরাদিয়া নয়াপাড়া এলাকায় ধৃত জিন্নাত তার সহযোগীদের নিয়ে অবস্থান নেয়। এরপর তারা আসিফকে মোবাইলে ডেকে নিয়ে আসে। আসিফ মেরাদিয়া নয়াপাড়াস্থ সাকিবুল হাসান ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কশপের সামনে আসা মাত্র পূর্ব হতে ওৎ পেতে থাকা জিন্নাত ও তার সহযোগীরা আসিফকে ঝাপটে ধরে ধারালো চাকু দিয়ে এলোপাতারি আঘাত করতে থাকে। আসিফ রক্তাক্ত অবস্থায় মাটিতে পড়ে গেলে সকল আসামিরা ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। পরবর্তীতে ভিকটিম আসিফকে তার আতীয় স্বজনরা ঢাকা মেডিক্যাল হাসপাতালে নিয়ে যায় এবং ঢাকা মেডিক্যাল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। উক্ত ঘটনায় ভিকটিমের ভাই বাদী হয়ে জিন্নাতসহ তার সহযোগীর বিরুদ্ধে খিলগাঁও থানায় মামলা দায়ের করেন যার মামলা নং-৩৯, তারিখ ১৬/০৪/২০২১, ধারা-৩০২/৩৪ পেনাল কোড। ধৃত ১ নং আসামীর বিরুদ্ধে পূর্বে খিলগাঁও, বাড্ডা ও চুয়াডাংগার দামুরহুদা থানায় হত্যা ও মাদকসহ ৭ টি মামলা রয়েছে এবং তার ভাই আলমগীরের বিরুদ্ধে ৪টি মাদক মামলা রয়েছে । উল্লেখ্য যে, শীর্ষ সন্ত্রাসী জিন্নাত আলী (২৮) খিলগাঁও থানার পুলিশ সোর্স আসিফ হত্যা মামলার মূল হোতা।

আসামীদ্বয়ের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

নিউজটি শেয়ার করুন...
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •