পরিকল্পিতভাবে বিদ্যুৎ বিলের জরিমানা আদায় করছে কুমিল্লা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
কুমিল্লা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-৩, গৌরীপুর, দাউদকান্দি, কুমিল্লা এর আওতাভুক্ত হাজার হাজার গ্রাহকের কাছ থেকে পরিকল্পিতভাবে বিদ্যুৎ বিলের জরিমানা আদায় করছে ব্যাংকগুলো।

বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার শেষ তারিখ ৩রা জুলাই হলেও ঐ দিন ছিল সরকারী ছুটির দিন শনিবার অর্থাৎ ব্যাংক বন্ধের দিন। সারাদেশে কঠোর লকডাউনের কারনে সরকার কর্তৃক নির্ধারিত রোববার ও বৃহস্পতিবার ব্যাংক বন্ধ ঘোষিত রয়েছে। ফলে ৫ ই জুলাই সোমবার বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার জন্য হাজার হাজার গ্রাহক কয়েকটি ব্যাংকে ভিড় জমায়।

গৌরীপুর এনসিসি ব্যাংকে জরিমানার বিষয়ে কয়েকজন গ্রাহকের সাথে ব্যাংকের অফিসারের কথা কাটাকাটি হতে দেখা যায়। ব্যাংকের অফিসার জানান, আমরা পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে যোগাযোগ করেছি, তারা বলেছে জরিমানা আদায় করতেই হবে।

ব্যাংকে বিদ্যুৎ বিল দিতে আসা একজন নারী গ্রাহক ক্ষিপ্ত হয়ে বলেন, দেশটা মগের মুল্লুক হয়ে গেছে। দেশে যখন কঠোর লকডাউন চলছে, ঘর থেকে বের হওয়ার কোনো উপায় নেই, আর পল্লী বিদ্যুৎ তখন গ্রাহকের জরিমানা নেওয়ার মহা উৎসবে মেতে উঠেছে।

এ ব্যাপারে কুমিল্লা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-৩, গৌরীপুর, এর সিনিয়র জেনারেল ম্যানেজার প্রকৌঃ মোহাম্মদ আলী হোসেনের সাথে কথা বললে তিনি জানান, এটা জাতীয় সিদ্ধান্ত। আমি অমান্য করলে আমার চাকুরী থাকবে না। তিনি আরো বলেন, ব্যাংক বন্ধ থাকলেও অন্যান্য মাধ্যমেও তো বিল পরিশোধ করার সুযোগ ছিল। যেমন পল্লী বিদ্যুৎ এর নির্ধারিত অফিস খোলা ছিল। নেক্সাস-পে, বিকাশ, রকেট ইত্যাদির মাধ্যমেও তো গ্রাহক বিল পরিশোধ করতে পারতো। এ ব্যাপারে গ্রাহকের জরিমানা দেওয়াই ফাইনাল সিদ্ধান্ত।

যুক্তিসঙ্গত প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, গ্রাহকের কাছ থেকে বিলের জরিমানা না নিলে সেটার কারণে সার্ভারে বিল পরিশোধ হবে না। যেহেতু জরিমানার ব্যাপারে অভিযোগ এসেছে তাই আমি এ ব্যাপারে উপর লেভেলে স্বারক ও দরখস্ত পাঠাবো। সিদ্ধান্ত গ্রাহকের অনুকুলে হলে গ্রাহকের জরিমানার টাকা ফেরৎ দেওয়া হবে।