দেবীদ্বারে অসহায় মানুষের পাশে আমেরিকা প্রবাসী ডাক্তার ফেরদৌস খন্দকার

শাহ সাহিদ উদ্দিন,
কুমিল্লা দেবীদ্বার প্রতিনিধি:করোনাকালে আমাদের দূরাবস্থা করতেও কেউ পাশে দাড়ায়নি!দেবীদ্বারে ডাঃ ফেরদৌস খন্দকার’র ‘কোভিড-১৯ কন্ট্রোল রোম’র সেচ্ছাসেবীরা উপজেলার রাজামেহার গ্রামের প্রত্যান্ত অঞ্চলে অবহেলিত একটি গুচ্ছগ্রামের ৫০টি অসহায় পরিবারের সদস্যদের মাঝে পৌঁছে দিলেন খাদ্য উপহার সামগ্রীর প্যাকেট।

উপহারসাগ্রীর প্যাকেট হাতে নিয়ে আনন্দে আবেগ-আপ্লুত হয়ে সবিতা রানী, আমেনা বেগম, সুরেশ বাবু, আয়েত আলী অশ্রæসিক্ত হয়ে বলেই ফেলনে,- ‘ চলমান করোনায় আমাদের দুরাবস্থায় এ পর্যন্ত কেউ করুণা করতেও পাশে দাড়ায়নি।

গতকাল ওই খাদ্য সামগ্রী বিতরণকালে, বৈশিক মহামারি করোনায় চলমান লকডাউনে সরকার, প্রধান মন্ত্রীর খাদ্য উপহার, বিভিন্ন সংগঠন ও ব্যাক্তি পর্যায়ে অসহায়, দরিদ্র, কর্মহীন ও বিপদগ্রস্থ্য পরিবারের সহায়তায় খাদ্য সহ বিভিন্ন উপহার সামগ্রী বিতরণ করলেও উপজেলার প্রত্যান্ত অঞ্চলে প্রায় দুইযুগ আগে গড়েতোলা একটি গুচ্ছগ্রামের অধিবাসী হয়েও এসব সহযোগীতা থেকে বরাবরই বঞ্চিত হয়ে আসছেন বলে জানালেন ওই গুচ্ছগ্রামের উপকার ভোগীরা। চলমান লকডাউনে মানবতার ফেরিওয়ালা আমেরিকা প্রবাসী ডাঃ ফেরদৌস খন্দকারের উপহার সামগ্রীই প্রথমবারের মতো পেয়েছেন বলেও তারা জানান।

রাজামেহার গুচ্ছগ্রামের অধিবাসী ও রাজামেহার ইউনিয়ন গ্রামপুলিশ নেপাল চন্দ্র জানান, ১৯৯৮সালের বণ্যায় আমরা ১৩টি মুসলিম ও ৭টি হিন্দু পরিবারসহ মাট ২০টি পরিবার এ আবাসন প্রকল্পের আওতায় স্থায়ীভাবে বসবাস করে আসছি। এসময় ২০ পরিবার থেকে প্রায় ৫০ পরিবারে উন্নীত হয়েছে। আমাদের এ গুচ্ছগ্রামের হিন্দু- মুসলিমরা ধর্মের ভেদাভেদের উর্ধে থেকে অসাম্প্রদায়িক মানসিকতা নিয়ে চলার কারনে কোন সংঘাতের ঘটনা ঘটেছে এমন কোন নজির নেই। আমরা একই পরিবারের ন্যায় বিগত ২৪ বছর যাবৎ একত্রে বসবাস করে আসছি। তবে এটা সত্য করোনাকালের এ চলমান লকডাউনে সরকার, বিভিন্ন সংগঠন ও ব্যাক্তি পর্যায়ের ত্রানসামগ্রী থেকে উক্ত আশ্রয়ন প্রকল্পের অসহায়, দরিদ্র, কর্মহীন ও বিপদগ্রস্থ্যরা বঞ্চিত। এমনকি প্রধান মন্ত্রীর খাদ্য উপহার সামগ্রী আমাকে ছাড়া এ গুচ্ছগ্রামের আর কেউ পায়নি।

এসময় উপস্থিত ছিলেন সাংবাদিক এবিএম আতিকুর রহমান বাশার, বাংলাদেশ শিক্ষাসেবা ফাউন্ডেশন’র দেবীদ্বার উপজেলা শাখার সাধারন সম্পাদক মোঃ মাহববুর আলম, ‘পাশে আছি কোভিড-১৯ সেবা’ টিম’র সমন্বয়ক শাহীনূর লিপি, মনির হোসেন, আব্দুর রহমান ভূইয়া, রীমা আক্তার, আয়েশা আলী মুক্তা।

অন্যান্যের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন, মোঃ আমীর আলী সরকার, মোঃ ফজলুর রহমান সরকার, মোঃ জাহিদুল ইসলাম সিফাত, আরিফুল ইসলাম, আশরাফুল, ফয়সাল, রিয়াদ প্রমুখ।

এসময় সাংবাদিক আতিকুর রহমান বাশার বলেন, দেশের এই ক্রান্তিকালে, সারাদেশে কঠোর লকডাউনে শ্রমজীবী দিনমজুররা যখন কর্মহীন হয়ে পড়েছে, তাদের কথা ভেবে আমেরিকা প্রবাসী ডাঃ ফেরদৌস খন্দকারের সহায়তায় সামাজিক কার্যক্রমের অংশ হিসেবে, দেবীদ্বারের প্রত্যন্ত অঞ্চলে উপহারভোগীদের ঘরে খাদ্য উপহার সামগ্রী পৌঁছে দেয়া হচ্ছে।

এছাড়াও করোনায় আক্রান্তদের এ্যাম্বুলেন্স, অক্সিজেন, ঔষধ, খাদ্য ও ফলফলাদীসহ চিকিৎসা সহায়তাদানের পাশাপাশি উপকারভোগী যে কেউ নির্ধারিত হটলাইন নাম্বারে ফোনে যোগাযোগ করা মাত্রই খাদ্য সহায়তা পৌঁছে দেয়া হচ্ছে। তিনি শুধু দেবীদ্বার, কুমিল্লায়ই নয়, সারা দেশে এক অভূতপূর্ব অবদান রেখে যাচ্ছেন ।