চট্টগ্রামে এন,এন,কে ফাউন্ডেশনে’র উদ্যোগে রান্না করা খাবার বিতরণ

মোঃ কামাল হোসেন, চট্টগ্রামঃ তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ এমপির পারিবারিক দাতব্য প্রতিষ্ঠান এন,এন,কে ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে আজ বুধবার (৭ জুলাই) দুপুর ২ টায় চট্টগ্রাম নগরীর চকবাজার গোলজার মোড় এলাকায় করোনা কালীন সংকটে নিমজ্জিত ৩০০ অসহায় ও রিক্সা চালকদের মাঝে রান্না করা খাবার বিতরণ করা হয়।

খাবার বিতরণকালে উপস্থিত ছিলেন এন,এন,কে ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ খালেদ মাহমুদ, রাঙ্গুনিয়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের অধ্যাপক ড. আবদুল মাবুদ, রাঙ্গুনিয়ার সরফভাটা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শেখ ফরিদ উদ্দিন চৌধুরী, তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. মাহমুদ এমপির সহকারী রাঙ্গুনিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক এমরুল করিম রাসেদ, রাঙ্গুনিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক জসিম উদ্দিন তালুকদার, বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা (বাসস) চট্টগ্রামের সাংবাদিক জিগারুল ইসলাম, রাঙ্গুনিয়ার পদুয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সদস্য সাবেক ছাত্রনেতা মোঃ কামাল হোসেন, গুলজার টাওয়ার ব্যবসায়ি কল্যাণ সমবায় সমিতির সভাপতি আলহাজ্ব মৌলানা আবুল খায়ের, গুলজার টাওয়ার ব্যবসায়ি কল্যাণ সমবায় সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলী, রাঙ্গুনিয়া উপজেলা ছাত্রলীগ এর সাংগঠনিক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার মোঃ নাসির উদ্দিন।

গত বছর করোনার প্রাদুর্ভাব শুরু হওয়ার পর থেকে তথ্যমন্ত্রীর ব্যক্তিগত ও পারিবারিক দাতব্য প্রতিষ্ঠান এন,এন,কে ফাউন্ডেশন এর উদ্যোগে নির্বাচনী এলাকা রাঙ্গুনিয়ায় প্রায় ৫০ হাজার পরিবারের মাঝে খাদ্যসামগ্রী সহায়তা দেয়া হয়েছে।

সম্প্রতি লকডাউনের কারণে রাঙ্গুনিয়ার বেকার সিএনজি অটোরিক্সা চালকদের মাঝে ৬শ’ প্যাকেট খাদ্যসামগ্রী সহায়তার প্যাকেট বিতরণ করা হয়েছে। প্রতিটি প্যাকেটে চাল, ডাল, তেল, লবণ ও চিনিসহ ২৫ কেজির নিত্যপণ্য রয়েছে।

চট্টগ্রাম নগরীতেও “এন,এন,কে ফাউন্ডেশন” র খাদ্য সহয়তা প্রদান প্রসঙ্গে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ এমপির ছোট ভাই “এন,এন,কে ফাউন্ডেশন”র চেয়ারম্যান মোহাম্মদ খালেদ মাহমুদ এর নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, আত্ব মানবতার সেবায় নিয়োজিত দাতব্য প্রতিষ্ঠান এন,এন,কে ফাউন্ডেশন সবার। কাজ করে যাচ্ছে মানবতার কল্যাণে। তাছাড়া আমাদের বাড়ি রাঙ্গুনিয়া হলেও চট্টগ্রাম শহরেও আমাদের বাসা বাড়ি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এবারের লকডাউনে সব জায়গায় হোটেল রেস্তোরাঁ বন্ধ থাকায় খাদ্য সংকটে নগরীর রিক্সা চালক ও ভাসমান লোকজন। তাই সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে চেষ্টা করে যাচ্ছি তাদের জন্য কিছু করতে। ফাউন্ডেশনের সহয়তা চলমান থাকবে ইনশাআল্লাহ। তিনি প্রত্যেককেই নিজ নিজ অবস্থান থেকে অসহায় মানুষের জন্য কাজ করার আহবান জানান।