করোনা শনাক্তে এই প্রথম চট্টগ্রাম নগরকে ছাড়িয়ে গেল উপজেলা

মুহাম্মদ মুছা, ফটিকছড়ি উপজেলা প্রতিনিধিঃ

চট্টগ্রামে করোনা শনাক্তে এই প্রথম নগরকে ছাড়িয়ে গেল উপজেলা। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হওয়া ১৩৬ জনের মধ্যে ৬৯ জনই চট্টগ্রামের বিভিন্ন উপজেলার। বাকি ৬৭ জন নগরের বাসিন্দা। একই সময়ে করোনায় আক্রান্ত হয়ে নগরের একজন মারা গেছেন।

এ নিয়ে চট্টগ্রামে এ পর্যন্ত মোট করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৫৫ হাজার ৯৮১ জন। মোট শনাক্তদের মধ্যে চট্টগ্রাম নগরীর ৪৪ হাজার ১০০ জন। আর জেলার বিভিন্ন উপজেলার ১১ হাজার ৮৮১ জন রয়েছেন। করোনা আক্রান্ত হয়ে এ পর্যন্ত মোট ৬৫৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে ৪৬০ জন চট্টগ্রাম নগরের আর বিভিন্ন উপজেলায় মারা গেছেন ১৯৭ জন।

রোববার (২০ জুন) চট্টগ্রাম জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য গেছে।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, চট্টগ্রামের সরকারি-বেসরকারি সাতটি ও কক্সবাজারের একটি ল্যাবে ৬৪২ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। তাতে ১৩৬ জনের করোনা শনাক্ত হয় যাদের মধ্যে চট্টগ্রাম নগরের ৬৭ জন এবং বিভিন্ন উপজেলার ৬৯ জন রয়েছেন।

এদিন শনাক্তের হার ২১ দশমিক ১৮ শতাংশ। গত বৃহস্পতিবার (১৭ জুন) চট্টগ্রামে ১৬৯ জনের করোনা শনাক্ত হয় আর মৃত্যু হয় দুই জনের। শনাক্তের হার ছিল ১৪ দশমিক ৪৪ শতাংশ। শুক্রবার (১৯ জুন) চট্টগ্রামে করোনায় চার জনের মৃত্যু হয় আর আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছিল ২২২ জন। শনাক্তের হার ছিল ১৯ দশমিক ২৮ শতাংশ। শনিবার (২০ জুন) চট্টগ্রামে ১৫৭ জনের করোনা শনাক্ত হয়, মৃত্যু হয় দুই জনের। শনাক্তের হার ছিল ১৬ দশমিক ০২ শতাংশ।

নতুনভাবে শনাক্তদের মধ্যে বাংলাদেশ অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেসে (বিআইটিআইডি) ৩৪০ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে শনাক্ত হয় ৬৬ জন। যাদের মধ্যে ১৯ জন নগরের এবং ৪৭ জন বিভিন্ন উপজেলার।

চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) ল্যাবে ৬৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ১৬ জন করোনা পজিটিভ শনাক্ত হন। যাদের ১৪ জন নগরের, ২ জন উপজেলার।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাব ও চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি অ্যান্ড অ্যানিম্যাল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয় (সিভাসু) ল্যাবে গত ২৪ ঘণ্টায় কারও নমুনা পরীক্ষা হয়নি।

পটিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ১০ জনের নমুনা পরীক্ষা করে উপজেলার ১ জনের শরীরে করোনার অস্তিত্ব পাওয়া গেছে।

এছাড়া চট্টগ্রামের বেসরকারি করোনা পরীক্ষাগারের মধ্যে শেভরণ ক্লিনিক্যাল ল্যাবরেটরিতে ৮৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করে নগরের ৫ জন ও উপজেলার ৩ জন, চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতাল ল্যাবে ২৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করে নগরের ৪ জন ও উপজেলার ৬ জনের শরীরের করোনা পজিটিভ পাওয়া গেছে।

অন্যদিকে কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজ ল্যাবে চট্টগ্রামের ৪৫ জনের নমুনা পরীক্ষা করে উপজেলার ৩ জনের শরীরে করোনা ভাইরাসের অস্তিত্ব মিলেছে।চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের রিজিওনাল টিবি রেফারেল ল্যাবরেটরি (আরটিআরএল) ল্যাবে ২৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ৪ জন নগরের ও ৬ জন উপজেলার বাসিন্দার করোনা শনাক্ত হয়।এদিন ইম্পেরিয়াল হাসপাতাল ও মেডিকেল সেন্টারেও কোন পরীক্ষা হয়নি।উপজেলায় করোনা আক্রান্তদের মধ্যে বাঁশখালীর তিন জন, লোহাগড়ার একজন, আনোয়ারার একজন, চন্দনাইশের একজন, পটিয়ার তিনজন, রাঙ্গুনিয়ার দুই জন, রাউজানের একজন, ফটিকছড়ির ৩০ জন, হাটহাজারীর চার জন, সীতাকুণ্ডে ১৩ জন ও মিরসরাইয়ে ১০ জন রয়েছেন।