নবীনগরে শিশু ধর্ষণের অভিযোগে পঞ্চাশোর্ধ বৃদ্ধ গ্রেপ্তার

মো. সফর মিয়া, (ব্রাহ্মণবাড়িয়া)নবীনগর প্রতিনিধি;
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে পৌর এলাকার ২নং ওয়ার্ডের পশ্চিম পাড়ায় ১১ বছরের শিশুকে কেক খাওয়ানোর কথা বলে দোকানে ডেকে নিয়ে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে জহর মিয়া ওরফে জল্লা মিয়া নামক পঞ্চাশোর্ধ এক বৃদ্ধের বিরুদ্ধে।ঘটনাটি গত শুক্রবার (১৬/৭)দুপুরে ঘটেছে।ধর্ষক জল্লা মিয়া নবীনগর পৌর এলাকার ২নং ওয়ার্ডের স্থানীয় বাসিন্দা।

ভিকটিমের পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, ময়মনসিংহের হত-দরিদ্র একটি পরিবার গত ৩ বছর ধরে নবীনগর ফতেহপুর রোড সংলগ্ন বাসার মিয়ার বাড়িতে ভাড়া বাসায় বসবাস করে আসছেন। ঘটনার দিন ১৬ জুলাই শুক্রবার দুপুরে পাশের একটি মুদির দোকানে কেক নিতে আসলে ধর্ষক জহর মিয়া (৫০) ফাকা বাসায় ডেকে নিয়ে ঘরের দরজা আটকিয়ে জোরপূর্বক তাকে ধর্ষণ কালে তরুণীর আত্মচিৎকারে পার্শ^বর্তীরা ছুটে এসে তাকে উদ্ধার করেন।পরবর্তীতে ১৮ জুলাই বর্তমান কাউন্সিলর আবু তাহের মিয়ার বড় ভাই বিরাজ মিয়ার নেতৃত্বে কতিপয় সালিশকারকদের মাধ্যমে বিষয়টি দামাচাপা দিতে নগদ ৫ হাজার টাকা ও ভিকটিমের নানির পায়ে ধরিয়ে মাফ চাওয়ার মাধ্যমে মীমাংসা করা হয়।

উল্লেখ্য ধর্ষনের স্বীকার মেয়েটির বাবা ‘মানসিক ভারসাম্যহীনথ হওয়ায় মেয়েটির নানিই ভিক্ষা বৃত্তির মাধ্যমে ছোট থেকে লালন পালন করে আসছেন এমনটাই কান্না জড়িত কন্ঠে বলেন তার নানি।ধর্ষক গ্রেপ্তার হওয়ায় নবীনগর থানা প্রশাসনের প্রতি সাধারণ মানুষের শ্রদ্ধাবোধ বেড়ে যায়।ধর্ষকের গ্রেপ্তার সংক্রান্ত বিষয়ে জানতে নবীনগর থানা অফিসার ইনচার্জ আমিনুর রশিদ কে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি জানান, সংবাদ পেয়ে ভিকটিমকে যথাযথ উপায়ে থানা হেফাজতে নিয়ে এসে জিজ্ঞাসাবাদ করে ঘটনার সত্যতা পাওয়ায় ভিকটিমের দাদিকে দিয়ে অভিযোগ করিয়েছি। এবং তাৎক্ষণিক অভিযান পরিচালনা করিয়া গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আসামিকে গ্রেপ্তার করি। মঙ্গলবার আসামিকে আদালতে সোপর্দ করব।