পটুয়াখালীতে ৬ষ্ঠী পূজার মধ্য দিয়ে শুরু শারদীয় দূর্গা উৎসব

4

মোঃ রুবাইয়াত হক মেহেদী, পটুয়াখালী প্রতিনিধিঃ
উলুধ্বনি, শঙ্খ, ঘণ্টা আর ঢাক-ঢোলের বাজনার মধ্য দিয়ে শুরু হলো ষষ্ঠীপূজা। আর এর মাধ্যমেই শুরু হলো বাঙালি হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজার আনুষ্ঠানিকতা ।সোমবার সকাল সোয়া ৮টায় পটুয়াখালীর আখড়াবাড়ী মন্দিরে দেবীর ষষ্ঠাদি কল্পারম্ভের মধ্য দিয়ে শুরু হয় ষষ্ঠীর দিনের পূজা।এ সময় ঢাক-ঢোলের বাজনা, কাঁসা, শঙ্খের আওয়াজ এবং ভক্তদের উলুধ্বনিতে দেবী দুর্গাকে পৃথিবীতে স্বাগত জানানো হয়। সন্ধ্যায় হবে দেবীর আমন্ত্রণ ও অধিবাস।আখড়াবাড়ী মন্দিরের সভাপতি লিটু বলেন, ‘শ্বশুরবাড়ি কৈলাস থেকে কন্যারূপে দেবী দুর্গা বাপের বাড়ি বেড়াতে মর্ত্যলোকে এসেছেন। সঙ্গে চার সন্তান সরস্বতী, লক্ষ্মী, গণেশ ও কার্তিক। আমরা তাকে বরণ করে নিয়েছি। আর এর মাধ্যমেই শুরু হলো দুর্গাপূজার মূল আয়োজন।’
আখড়াবাড়ী মন্দিরের মণ্ডপ সোমবার সন্ধ্যায় উন্মুক্ত করা হবে বলে জানান সভাপতি লিটু ষষ্ঠীপূজা উপলক্ষে আখড়াবাড়ী মন্দিরে সকাল থেকেই মানুষের ঢল নামে। এ সময় উৎসব-আনন্দে মেতে ওঠে শিশু, কিশোর-কিশোরী, তরুণ-তরুণীসহ সব বয়সী মানুষ।মন্দিরের প্রবেশ পথে নারী ও পুরুষের জন্য রয়েছে আলাদা লাইন। সবার জন্য মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।
ষষ্ঠীর সকালে মন্দিরে পূজা দিতে আসা সুদিপ্ত দাস বলেন, ‘হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় উৎসব দুর্গাপূজা। ষষ্ঠীপূজার সকালে মন্দিরে না এলে পূজার আনন্দ অনুভব করা যায় না।’একই কথা বললেন বিলাশ সমাদ্দার, ‘দুর্গাপূজায় সবচেয়ে বেশি আনন্দ হয় ষষ্ঠীপূজায়। কেননা এই দিনেই দেবী দূর্গা পৃথিবীতে আসেন। তাই গত কয়েক বছর ধরে ষষ্ঠীপূজায় মন্দিরে আসি।পঞ্জিকা অনুযায়ী, এবার দেবী মর্ত্যে এসেছেন ঘোড়ায় চেপে। পুরাণ অনুযায়ী, দুর্গা ঘোড়ার পিঠে চড়ে এলে প্রতিবেশী দেশের সঙ্গে যুদ্ধ, গৃহযুদ্ধ, ঝড়, রাজনৈতিক অস্থিরতা ইত্যাদি পরিস্থিতি সৃষ্টির সম্ভাবনা থাকে। আর ১৫ অক্টোবর বিজয়া দশমীতে দেবী মর্ত্য ছাড়বেন দোলায় চড়ে। দোলায় গমনেও বাড়বে প্রাকৃতিক দুর্যোগ, দুর্বিপাক।পঞ্জিকা অনুযায়ী, সোমবার মহাষষ্ঠীতে সকালে দুর্গা দেবীর ষষ্ঠাদি কল্পারম্ভ এবং ষষ্ঠীবিহিত পূজা, সন্ধ্যায় দেবীর বোধন। মঙ্গলবার মহাসপ্তমীবিহিত পূজা, বুধবার মহাষ্টমীবিহিত পূজা, বৃহস্পতিবার মহানবমীবিহিত পূজা এবং শুক্রবার দশমীবিহিত পূজা সমাপন এবং প্রতিমা বিসর্জন।আখড়াবাড়ী পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি মৃদুল গুহ লিটু জানান, এ বছর পটুয়াখালী জেলায় ১৮৫ টি মণ্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছ।তবে করোনা মহামারির কারণে এবারও মেনে চলতে হবে কঠোর স্বাস্থ্যবিধি। মণ্ডপ এলাকায় বসবে না মেলা, থাকবে না আরতি প্রতিযোগিতা ও সাংস্কৃতিক আয়োজন।
পুরাণ অনুযায়ী, ব্রহ্মার বর পেয়ে মানুষ ও দেবতাদের অজেয় হয়ে উঠেছিলেন মহিষাসুর। ফলে তাকে পরাজিত করার জন্য ব্রহ্মা, বিষ্ণু ও মহেশ্বর যে মহামায়ারূপী নারী শক্তি তৈরি করেন তিনিই দেবী দুর্গা। দশভূজা দুর্গা টানা ৯ দিন যুদ্ধ করে মহিষাসুরকে বধ করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন...
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •