দশমিনায় ২০টি ভোটকেন্দ্রে হাটু সমান পানি ভোটারদের যাতায়েতে চরম দূর্ভোগ

মোঃ আরিফুর রহমান(ঝন্টু) দশমিনা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি।

পটুয়াখালীর দশমিনা উপজেলার তিন ইউপিতে আজ সোমবার নির্বাচন । অধিকাংশ ভোটকেন্দ্রেই হাটু সমান পানি ভেঙ্গে ভোটাররা পছন্দের প্রার্থীকে ভোট প্রদান করবেন। উপজেলার তিন ইউনিয়নের মেঠোপথের কাদা-পানি পাড়ি দিয়ে এবারের ভোট আয়োজনে চরম দূর্ভোগ ভোটারদের।
গতকাল রোববার সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার তিন ইউনিয়নের ৩৬টি মধ্যে অধিকাংশ ভোটকেন্দ্রেই হাটু সমান পানি। উপজেলার ২নং আলীপুরা ইউনিয়নের মীরমদন, রমানাথসেন, পুর্বআলীপুর, গুলবুনিয়া, খলিসাখালী, দক্ষিন চাঁদপুরা, দক্ষিন চাঁদপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বিবিরায় মাধ্যমিক বিদ্যালয় ৬নং বাঁশবাড়িয়া ইউনিয়নের শাহ কেরামতিয়া, উত্তর বাঁশবাড়িয়া, দক্ষিন বাঁশবাড়িয়া, দক্ষিন দাসপাড়া, চরহোসনাবাদ সিনিয়ার মাদ্রাসা, দক্ষিন পশ্চিম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ৫নং বহরমপুর ইউনিয়নের উত্তর বহরমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মধ্য বগুড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বগুড়া দাখিল মাদ্রাসা, মোল্লার হাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, নেহলগঞ্জ মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও দক্ষিন আদুমপুর সরকারি প্রাথমি বিদ্যালয়সহ ২০টি ভোটকেন্দ্রে হাটু সমান পানি। উপজেলার বাঁশবাড়িয়া ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের নির্বাচনের ভোটকেন্দ্র শাহ কেরামতিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠ বৃষ্টির পানিতে হাটু সমান তলিয়ে রয়েছে। এছাড়া একটিমাত্র ভবন হওয়ায় জনচলাচলের পর্যাপ্ত জায়গার সংকট দেখা দিয়েছে বলে স্থানীয়রা জানান। বাঁশবাড়িয গ্রামের মো. হারুন বেপাড়ি জানান, স্কুলের মাঠ খুবই ছোট এবং নীচু হওয়ায় সবসময় মাঠে পানিতে তলিয়ে থাকে। কিš‘ ভোট দিতে এসে কোন মানুষ মাঠে দাঁড়াতে পারবে না। দক্ষিন দাস পাড়া গ্রামের মেম্বার প্রার্থী মো. নিজাম উদ্দিন রাড়ি জানান, আমার নির্বাচনীয় ওয়ার্ডে কাদা-পানি ভেঙ্গে ভোটাররা চরম দূর্ভোগ শেষে ভোট প্রদান করবেন। বাঁশবাড়িয়া ইউনিয়নের নৌকা প্রতিকের চেয়ারম্যান প্রার্থী কাজী কালাম আবুল জানান, আমার এলাকায় অধিকাংশ ভোটকেন্দ্রর মাঠ নিচু আর গত কয়েকদিনে ভারি বৃষ্টিতে পানিতে তলিয়ে আছে। কেন্দ্রেগুলোতে ভোটারদের যাওয়া আসায় চরম দূর্ভোগ পোহাতে হবে। একই অভিযোগ স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান দুই প্রার্থীর ।আলীপুর ইউনিয়নের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান দুই প্রার্থী মো. ইকবাল হোসেন ও মো. সোহরাব হোসেন জানান, এ ইউনিয়নের আকা-বাকা কাদা মাটির রাস্তা পাড়ি দিয়ে ভোট কেন্দ্রে ভোট দিতে আসবে। তবে বৃদ্ধ ভোটাররা অতি কষ্টে আসবে এবং যাবেন।
এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আল আমিন বলেন, একে বর্ষার মৌসুম তার উপরে বিদ্যালয়ের মাঠ নিচু স্থান। আর এরক অনেক গুলো ভোট কেন্দ্রের সমস্য দেখা দিয়েছে। তবে পানি নিস্কাশনের ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে।