কলাপাড়ায় গৃহহীন পরিবারকে প্রধানমন্ত্রীর উপহার জমি সহ ঘরের চাবি প্রদান

কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি।।মুজিববর্ষ উপলক্ষে ভূমিহীন-গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহপ্রদান কার্যক্রম ২য় পর্যায় এর শুভ উদ্বোধন হয়েছে। “মুজিববর্ষের অঙ্গীকার একজন মানুষও গৃহহীন থাকবেনা” এই স্লোগানকে সামনে রেখে রবিবার সকাল সাড়ে দশটায় গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে এ কার্যক্রম ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে উদ্বোধন করেন। এ সময় ২য় পর্যায়ে ৪৫৯টি উপজেলার ৫৩ হাজার তিনশত চল্লিশটি পরিবারের মধ্যে দুই শতক জমি সহ সেমিপাকা ঘর প্রদান করা হয়। যার মধ্যে পটুয়াখালী জেলার কলাপাড়া উপজেলার ৫৮টি পরিবারের মধ্যে এ জমির দলিল এবং ঘরের চাবি প্রদান করা হয়েছে।
অনুষ্ঠানে কলাপাড়া প্রান্তে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) জি এম সরফরাজ আহমেদ, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা এস এম রাকিবুল আহসান, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান শাহিনা নাসরিন সীমা, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু হাসানাত মো.শহীদুল হক, সহকারী কমিশনার ভূমি জগৎবন্ধু মন্ডল, বাংলাদেশ বৈদ্য কৃষ্টি প্রচার সংঘ সভাপতি এবং বাংলাদেশ কৃষক লীগের কেন্দ্রীয় সহ ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক নিউ নিউ খেইন, লালুয়া ইউপি চেয়ারম্যান শওকত হোসেন তপন বিশ্বাস, বালিয়াতলি ইউপি চেয়ারম্যান মো.হুমায়ুন কবির, মিঠাগঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যান হেমায়েত উদ্দিন হিরন, ধানখালী ইউপি চেয়ারম্যান মো.রিয়াজ উদ্দিন, কলাপাড়া পল্লী বিদ্যুৎ কেন্দ্র’র ডিজিএম মো.শহীদুল ইসলাম, কলাপাড়া প্রেসক্লাব সভাপতি হুমায়ুন কবির, সাধারণ সম্পাদক মোশারেফ হোসেন মিন্টু সিকদার, কুয়কাটা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি মিজানুর রহমান বুলেট, কলাপাড়া রিপোর্টার্স ইউনিটি ও কলাপাড়া রিপোর্টার্স ক্লাবের সদস্যবৃন্দ, উপজেলা পরিষদের কর্মকর্তাবৃন্দ এবং উপকারভোগী গৃহহীন এবং ভুমিহীন পরিবারের সদস্যবৃন্দ।
থিম সং দিয়ে শুরু হওয়া অনুষ্ঠানে “অন্তরবর্তী উন্নয়নে শেখ হাসিনা মডেল” নামক প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শন করা হয়। অনুষ্ঠানের মাধ্যমে জানা গেছে, মুজিববর্ষে ডিসেম্বরের মধ্যে আরও একলক্ষ ঘর সহ মোট দুই লক্ষ তেইশ হাজার ২৬৩টি ঘর উপহার প্রদান করা হবে। এবং দুই শতক জমি সহ সেমিপাকা ঘরের সাথে মসজিদ, কবরস্থান, স্কুল, ওয়ারিং সহ বিদ্যুৎ সংযোগ, গভীর নলকূপ, পুকুর, টয়লেট, খেলার মাঠ এবং উপকারভোগীদের ৩২টি প্রশিক্ষণের মাধ্যমে স্বাবলম্বী করার ব্যাবস্থা রয়েছে।

উপকারী ধানখালী ইউপির ইমারান বলেন, প্রধানমন্ত্রী আমাদের ঘর দেয়ায় আমরা পরিবার নিয়ে সুখে শান্তিতে থাকতে পারবো। প্রধানমন্ত্রীর জন্য অনেক দোয়া করি।

মিঠাগঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যান হেমায়েত উদ্দিন হিরন বলেন, প্রধানমন্ত্রী কলাপাড়া উপজেলায় এই সকল অসহায় মানুষের জন্য যে ঘরের ব্যাবস্থা করলেন তা এই অঞ্চলের মানুষ আজীবন স্বরন করবেন।

সহকারী কমিশনার(ভূমি) জগৎবন্ধু মন্ডল জানান, আপনাদের দেয়া খতিয়ান নম্বর ভালো করে পড়ে নিবেন। তিনি আরও জানান, এই ঘরগুলো হস্তান্তর যোগ্য নয়। পরবর্তীতে ভূমির নামজারি সহ সকল কার্যক্রম অফিসে আসলে বিনামূল্যে করে দেয়া হবে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু হাসানাত মো.শহীদুল হক আজকের পত্রিকাকে জানান, কলাপাড়া উপজেলার সুবিধাভোগী ১১০ পরিবারের মধ্যে ৫৮ পরিবারের হাতে প্রধানমন্ত্রীর উপহার জমির দলিল এবং ঘরের চাবি তুলে দেয়া হয়েছে। অসহায়, দরিদ্র, ভিক্ষুক, বিধবা, ছিন্নমূল, ভূমিহীন এবং গৃহহীনদের অগ্রাধিকারের ভিক্তিতে এ গৃহ প্রদান করা হয়েছে।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক জিএম সরফরাজ জানান, কলাপাড়া উপজেলায় কিছু দূর্গম এলাকা রয়েছে যেখানে কাজ করা খুবই কষ্টকর। সকল বাঁধা উপেক্ষা করে আপনারা প্রধানমন্ত্রীর উপহার দরিদ্র গৃহহীন মানুষের মাঝে তুলে দিতে পারায় সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ জানান। তিনি আরও জানান, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর অঙ্গীকার বাস্তবায়নে সকলকে সামনের দিনগুলোতেও এভাবে এগিয়ে আসতে হবে। আর তবেই বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়া সম্ভব হবে। তিনি জানান, মুজিবশতবর্ষের প্রধানমন্ত্রীর উপহার নিয়ে কেউ কোন রকম বানিজ্য করতে চাইলে কাউকেই ছাড় দেয়া হবেনা।

উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এস এম রাকিবুল আহসান জানান, সূবর্ন জয়ন্তীতে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিরলস পরিশ্রম করে মানুষের মৌলিক চাহিদা পুরণ করতে চেষ্টা করছেন। তারই ধারাবাহিকতায় আজ গৃহহীনদের জমিসহ ঘর প্রদান করা হয়েছে।