বেতাগীর কামারপট্টিতে নেই ঈদের ব্যস্ততা

মোঃ খাইরুল ইসলাম মুন্না
বেতাগী প্রতিনিধি:

কয়েকদিন পরেই করোনাকলীন ঈদুল আজহা। বরগুনার বেতাগীতে প্রতিবছর ঈদ সামনে রেখে কোরবানির পশুর মাংস কাটার জন্য প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম তৈরির কাজে কামার পল্লীতে দম ফেলার সময় থাকেনা। সারা বছর অলস সময় কাটাবার পর এ মৌসুমে বেশ ব্যস্ততা বেড়ে যেত কামার পাড়ায়। হাঁট-বাজারের খুচরা দোকানিদের জন্য লোহার অস্ত্রপাতি তৈরির পাশাপাশি কোরবানির উপযোগী দা-ছুরি বানানো এবং শান দিতে দিন-রাত কাজ করতেন কামাররা।

কিন্ত এ বছরে তার উল্টো চিত্র, লকডাউনের মধ্যে দোকান খুলতে না পারায় এত দিন অলস জীবন পার করেছে তারা। এখন এখানে নেই সেই চিরচেনা লোহা পেটানোর টুং টাং শব্দ। তবে ঈদ ঘনিয়ে আসায় দা, বটি ছোরা চাকুর চাহিদা বাড়ায় কিছুটা নড়ে চড়ে বসলেও তৃতীয় ধাপের সরকার ঘোষিত কঠোর লকডাউনে ঈদের আগে দোকান বন্ধ রাখতে বাধ্য হওয়ায় আনতে পারেনি প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম। মাঝে মাঝে ভয় ও শঙ্কার মধ্যে কেউ কেউ লুকিয়ে লূকিয়ে দোকান খূললেও, মানুষের চলাচল না থাকায় অর্ডার পায়নি তারা। এবারে কোরবানিতে বেচাকেনা জমে না ওঠায় দুশ্চিন্তায় দিশেহারা তারা। এমনই একজন উপজেলার চান্দখালী বাজারের কামার সমীর কর্মকার বলেন, প্রায় ৪০ বছর ধরে এ পেশার সাথে জড়িত। কিন্ত গত কোরবানির ঈদের মত এবারেও লকডাউনের কারণে তাদের ব্যবসার আসল মৌসুমে কাজ করতে না পারায় দুরাবস্থায় দিনতিপাত করছে। একই এলাকার দিপাঙ্কর কর্মকার, ধীরেন কর্মকার ও দিলীপ কর্মকার জানান, তারা সবাই সারা বছর বছরের এই সময়টায় অপেক্ষায় থাকেন। কিন্ত লকডাউনের কারণে ঈদের আগে দোকান খুলতে না পারায় কোন অর্ডার নিতে পারেননি। মানুষের চলাচল বন্ধ থাকায় সরঞ্জামদিও ক্রয় করে আনতে পারেনি।