আমতলীতে ভুয়া ডাক্তারের অপচিকিৎসায় জনমনে আতঙ্ক

10

মো.আবু সাইদ খোকন স্টাফ রিপোর্টার:বরগুনার আমতলীর উপজেলার হাটবাজার গুলোতে ভুয়া ডাক্তার ও ভারতীয় নিষিদ্ধ ঔষধের ছড়াছড়িতে সাধারণ মানুষের ভোগান্তি চরমে পৌঁছেছে। যত্রতত্র পাওয়া যাচ্ছে বাজারে বিক্রয় নিষিদ্ধ সরকারী ঔষধ। চলছে অতিরিক্ত মাত্রায় অ্যান্টিবায়োটিকের অপব্যবহার।সরোজমিনে গেছে, উপজেলার গ্রামঞ্চলের হাট বাজারসহ জনবহুল স্থানে ভুয়া ডাক্তারের ছড়াছড়ি দীর্ঘদিন থেকে লক্ষ করা যাচ্ছে। এসকল হাতুড়ে ডাক্তারদের অপচিকিৎসার কবলে পড়ে শিশু ও গর্ভবতী নারী সহ অকালে ঝরে গেছে অনেক মূল্যবান প্রাণ। গ্রামের সহজ-সরল সাধারণ মানুষ ডাক্তার নাম শুনলেই চিকিৎসার জন্য দৌড়ে চলে যায়। এসব ডাক্তারদের কাছ থেকে চিকিৎসা নিতে গিয়ে নানা বিড়ম্বনার শিকার সহ কিডনী, লিভার, হার্টের সমস্যা সহ জটিল রোগে আক্রান্ত হয়েছে অনেকেই। সরকারী-বেসরকারী বিভিন্ন গবেষনায় দেখা গেছে অতিরিক্ত মাত্রায় অ্যান্টিবায়োটিকের অপব্যবহারের ফলে এসব সমস্যায় পড়ছে সাধারণ মানুষ। অনুসন্ধানে জানা গেছে, কোনো প্রকার সার্টিফিকেট না থাকলেও দীর্ঘদিনের অভিজ্ঞতার বাজারগুলোতে বাত-ব্যাথা ও যৌন রোগের বিশেষজ্ঞ এক ভুয়া ডাক্তারের চেম্বারে রোগি সেজে চিকিৎসা চিকিৎৎসা চালিয়ে যাচ্ছেন এক ধরনের কিচু লোক।এসব ডাক্তাররা ভারতীয় যৌন রোগের ঔষধ টার্গেট-২০০, ভায়াগ্রার আদলে তৈরী সেনেগ্রা-২০০, যৌন উত্তোজক ফাইটে·, কফে· ও অ্যাফে· সিরাপ, ট্যাবলেট মুনইশ, অনুমোদনহীন ক্যালফ্রেশ ট্যাবলেট ও ডেকাডোরাভলিন সকল রোগের চিকিৎসা কওে থাকেন।এ ব্যাপারে আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মুনয়েম সাদ জানান, উপরোল্লে¬খিত, ঔষধগুলো মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর। এগুলো সেবনের ফলে মানবদেহের গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গগুলো বিকল হয়ে যেতে পারে।
এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো.কাওসার হোসেন বলেন বলেন, ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে ভুয়া ডাক্তারদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন...
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •