ঢাকা, মঙ্গলবার, ৫ই মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

রাসেল অপহরণের মুল পরিকল্পনাকারী তিনজন আটক

খাগড়াছড়ির আলোচিত কাঠ ব্যবসায়ী অপহরণে পুলিশের অভিযান

নুরুল আলম:: আলোচিত খাগড়াছড়ির ক্ষুদ্র কাঠ ব্যবসায়ী মো: সফিকুল ইসলাম রাসেল(২৭) অপহরণের ঘটনায় মুল পরিকল্পনাকারীসহ তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃতদের মধ্যে দুজনকে চট্টগ্রাম থেকে ও অপর একজনকে দীঘিনালা থেকে অভিযান চালিয়ে পুলিশ আটক করে বলে জানান খাগড়াছড়ি পুলিশ সুপার মুক্তা ধর।

অপহরণের ঘটনায় আটককৃতরা হচ্ছে, মিঞ ধন চাকমা ওরফে সুজন (২৭) তার স্ত্রী সন্ধ্যা চাকমা মৌসমী (২৪) ও ধনঞ্জয় চাকমা (৫৫)। বৃহস্পতিবার (২৩ নভেম্বর ২০২৩) বিকেলে তাদের আদালতে প্রেরণ করে পুলিশ। তাদের মধ্যে সুমন ও মৌসমীর বাড়ী রাঙামাটির লংগদুর শান্তিনগর এলাকার বাসিন্দা এবং ধনঞ্জয় চাকমা খাগড়াছড়ির দীঘিনালা উপজেলার তারাবুনিয়া গ্রামের মৃত কলো চাকমার ছেলে বলে জানা যায়।

খাগড়াছড়ি পুলিশ সুপার মুক্তা ধর জানান, একটি চক্র এ ঘটনায় জড়িত। আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে ঘটনার পরিকল্পনাকারীদের শনাক্ত করে তাদের দুজনকে চট্টগ্রাম থেকে আটক করা হয়। এ ঘটনায় অপর ব্যাক্তিকে খাগড়াছড়ি থেকে আটক করা হয়েছে। এ ঘটনায় বাকী জড়িতদের আটকে প্রক্রিয়া চলছে জানিয়ে খাগড়াছড়ি পুুলিশ সুপার মুক্তা ধর জানান,জড়িতরা কিভাবে অপহৃত রাসেলকে নিয়ে গেছে। অপহরণের পরিকল্পনাসহ মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে টাকা নেওয়ার সকল তথ্য বের করা হয়েছে। জড়িত বাকীদের আটক ও অপহৃত উদ্ধারে পুলিশ তৎপর আছে।

এছাড়াও কিছু বিষয়ে পুলিশকে সময় দিতে হবে জানিয়ে অপহৃতকে উদ্ধারে নানা দিক তুলে ধরে বিভিন্ন বিষয় তুলে ধরে দ্রুত সময়ের মধ্যে অপহৃত রাসেলকে উদ্ধার করা যাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করে তিনি অপহরণের বিষয়ে অনলাইন জুয়ার ঘটনা সূত্র পাওয়া গেছে বলে জানান।

মো: সফিকুল ইসলাম রাসেল(২৭) কে অক্ষত ফিরিয়ে দিতে পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদ ও রাসেল মুক্তি পরিষদ নামে দুটি সংগঠন জনগনকে সাথে নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে। এ অপহরণের ঘটনায় উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে পাহাড়। এ ঘটনায় ধারাবাহিকভাবে আন্দোলন চলে আসছে। গত বুধবার (২২ নভেম্বর ২০২৩) সকালে খাগড়াছড়ির বিভিন্ন পয়েন্ট থেকে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে পৌর ঈদগা মাঠ থেকে শাপলা চত্বর ঘরে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে শাপলা চত্বরে মুল সড়কে অবস্থান নেয়।

আন্দোলন থেকে অভিলম্বে অক্ষত রাসেলকে ফিরিয়ে না দিলে পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদের নেতৃত্বে শনিবার তিন পার্বত্য জেলায় কঠোর থেকে কঠোর আন্দোলনের ঘোষনা দেন। এ সময় দুস্কৃতিকারীদের আটকসহ অপহৃত রাসেলকে অক্ষত উদ্ধারের দাবী জানিয়ে আসছে।

চলতি মাসের ৯ নভেম্বর আট মাইল এলাকা থেকে সে নিখোঁজ হয়। বাগান দেখানোর কথা বলে তাকে অপহরণ করা হয়ে থাকতে পারে বলে পরিবার সূত্র জানায়। মুলত বাগান দেখার উদ্দেশ্যে ঘর থেকে বের হন গাছ ব্যবসায়ী শফিকুল ইসলাম রাসেল। এরপর আর ঘরে না ফেরায় বিভিন্ন মাধ্যমে খোঁজ খবর নেওয়ার এক পর্যায়ে তার পরিবারের কাছ থেকে মোটা অংঙ্কের চাঁদা দাবী করলে ভাইকে ফিরে পেতে দাবীকৃত অর্থ দেওয়ার পরও রাসেলকে ফিরিয়ে দেয়নি দুস্কৃতকারীরা।

অপহৃত রাসেলকে খাগড়াছড়ির কল্যাণপুরের বাসিন্দা মো. বাচ্চু মিয়ার ৫ ছেলে ১ মেয়ের মধ্যে সে তৃতীয়। সে পেশায় একজন ক্ষুদ্র কাঠ ব্যবসায়ী। গত বৃহস্পতিবার (গত ৯ নভেম্বর ২০২৩) দুপুরের পর তাকে খাগড়াছড়ির আট মাইল এলাকার রুচি চন্দ্র কারবারীপাড়া এলাকা থেকে তাকে অপহরণ করা হয় তাকে। এর মধ্যে শফিকুলের মোবাইল থেকে ফোন করে প্রায় দেড় লাখ টাকা মুক্তিপণ নেয়ার পর থেকে আর যোগাযোগ বন্ধ করে দেয় অপহরণকারীরা।

 

 

 

শেয়ার করুনঃ

স্বত্ব © ২০২৩ সকালের খবর ২৪