এমিন্যান্ট স্কুল অব ঢাকায় বিজয়ের ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে বিজ্ঞান মেলা

4

সাঈদা আক্তারঃ যুগের পর যুগ বিজ্ঞানের নতুন নতুন আবিষ্কার আমাদের জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রেই কিছু না কিছু অবদান রেখে চলেছে, হোক তা আমাদের নিত্য ব্যবহার্য জিনিসপত্র, চিকিৎসা সেবা, শিক্ষায় অথবা দেশের অগ্রগতিতে। একটা দেশের অগ্রগতির ধারা অব্যাহত রাখার জন্য বিজ্ঞানের ছোঁয়া অবশ্যক বলা যায়।
ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার অগ্ৰযাত্রা পথের পথিক হতে পুরান ঢাকার এমিন্যান্ট স্কুল অব ঢাকা বিজয়ের ৫০ বছর পূর্তিতে উপলক্ষে বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে বেলা ১০ টায় জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনের মাধ্যমে অনুষ্ঠানটি শুরু হয়। শিক্ষার্থীদের পুরস্কার বিতরণের মাধ্যমে এবং সর্বশেষ শিক্ষক-শিক্ষিকাদের দেশাত্মবোধক যৌথ গান পরিবেশনের মাধ্যমে বিকাল ৫ টায় অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘটে।
এই আয়োজনে অংশ নেয় ক্ষুদে শিক্ষার্থীরা। ২০২০ সালে যাত্রা শুরু করা স্কুলটির এটি প্রথম বিজ্ঞান মেলা। বিজ্ঞান মেলায় শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণ ছিল চোখে পড়ার মতো। একক এবং দলগত উভয় প্রকার অংশগ্রহণ দেখা গেছে। সেখানে শিক্ষার্থীরা ভিন্ন ভিন্ন বিষয়ের উপর তাদের বিজ্ঞান প্রজেক্ট তৈরি করেছে। সৌর জগত থেকে শুরু করে খাদ্য শৃঙ্খল , পরিবেশ বান্ধব জ্বালানি, বাস্তব জীবনে বিজ্ঞানের বিভিন্ন সূত্রের প্রয়োগ ইত্যাদি বিভিন্ন বিষয়ের উপর ছিল তাদের প্রদর্শনী। পুরো বিজ্ঞান মেলায় শিক্ষার্থী এবং শিক্ষকদের যৌথ প্রচেষ্টা দৃশ্যমান ছিল।
এসময় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, মুহাম্মদ সালমান ( BioTEd এর প্রধান ও সহ-প্রতিষ্ঠাতা, এছাড়াও তিনি বর্তমানে কর্মরত আছেন Chevron Bangladesh, এছাড়াও বিচারক হিসেবে ছিলেনশামসুল আরেফিন এরফান (প্রতিষ্ঠাতা এমিন্যান্ট স্কুল অব ঢাকা), প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ রাশেদুজ্জামান ।
এ বিষয়ে সাইন্সের শিক্ষিকা সাহিদা আক্তার আদর বলেন,বিজ্ঞান মেলা আয়োজনের মূল উদ্দেশ্য ছিল কোমলমতি শিক্ষার্থীদের বিজ্ঞানের প্রতি আগ্রহী করে তোলা, যাতে করে ভবিষ্যতে তারা দেশের বিভিন্ন সেক্টরে অবদান রেখে দেশকে উন্নতির দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারে।

নিউজটি শেয়ার করুন...